যে কোন সময় ধসে পড়তে পারে ওয়াহিদ ম্যানশন: বুয়েটের বিশেষজ্ঞ দল

বুধবার রাত সাড়ে ১০টা। চকবাজারের চুড়িহাট্টা মোড়ের সামনে ভয়াবহ যানজট। একটি বিয়ের বরযাত্রীদের গাড়ি যাচ্ছিল চার তলা ওয়াহিদ ম্যানশনের সামনে দিয়ে।

স্বাভাবিক যানজট আরও তীব্র আকার ধারণ করে। এর মধ্যে হঠাৎ করেই পারফিউমের বোতলভর্তি একটি পিকআপের গ্যাস সিলিন্ডার বিস্ফোরিত হয়ে ভবনের তিন তলা পর্যন্ত উঠে যায়। এতে পাশে থাকা বিদ্যুতের ছোট একটি ট্রান্সফরমারে আগুন ধরে যায়।

এ আগুনের স্পর্শে এ ভবনেরই একটি এয়ার কন্ডিশনারে (এসি) আগুন লাগে। বিকট শব্দে বিস্ফোরিত হয় ওই এসি। কিছু বুঝে ওঠার আগেই আগুন ছড়িয়ে পড়ে ওয়াহিদ ম্যানশনের দ্বিতীয় ও তৃতীয় তলায়।

সেখানে থাকা পারফিউমের কাঁচামাল ও বিদেশ থেকে আমদানিকৃত পারফিউমের গোডাউনের কারণে আগুন দ্রুত বেগে ছড়িয়ে পড়ে আশপাশের ভবনগুলোয়।

বুধবার রাতের ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডে কমপক্ষে ৭০ জন পুড়ে মারা গেছেন। আহত হয়েছেন আরও অনেকে। এদিকে যে কোন সময় ভবনটি ধসে পড়তে পারে বলে জানিয়েছেন বুয়েটের একটি বিশেষজ্ঞ দল।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, আগুন লাগার পর দ্রুত চারপাশে ছড়িয়ে পড়ে। এ সময় ঘটনাস্থলের আশপাশের সব ভবনে ও পাঁচ রাস্তার মোড়ে অনেক মানুষ আটকে যায়।

আর আগুন ছড়িয়ে পড়ার মূল কারণ ছিল প্লাস্টিকের সরঞ্জাম আর পারফিউম ও কেমিক্যাল। ভবন ও ঘটনাস্থল এতটাই ঘিঞ্জি যে, আগুন লাগার পরপরই এসবে ধরে যায়।

এ সময় বের হওয়ার কোনো পথই ছিল না কারও। ঘটনার পাঁচ থেকে সাত মিনিটের মধ্যে যারা প্রাণ নিয়ে কোনোমতে বের হতে পেরেছিলেন তারা এখন হাসপাতালে ভর্তি।

বাকিরা আর প্রাণে বাঁচতে পারেননি। ঘটনার ১৫ মিনিটের মধ্যেই তারা অগ্নিদগ্ধ হয়ে মারা যান বলে জানিয়েছেন ফায়ার সার্ভিস ও ঘটনাস্থলে থাকা পুলিশ সদস্যরা।

loading...

৭ ই মার্চ কথাটি শুনলেই মনের ভিতর জেগে উঠে একটি স্পন্দন। একটি বাজনা, একটি হুঙ্কার ও মুক্তির দমামা।মনে পড়ে যায় অসংখ্য প্রিয়জন হারানোর বেদনা ।

মানুষজন একটি দিনের ভাষণকে মনে কর... Read More

নামাজের সময়সুচী

ফজর ভোর ০৪:৩৬ মিনিট
যোহর বেলা ১১:৫৩ মিনিট
আছর বিকেল ০৪:১১ মিনিট
মাগরীব সন্ধ্যা ০৫:৫৪ মিনিট
এশা রাত ০৭:০৯ মিনিট
সেহরী ভোর
ইফতার সন্ধ্যা

আর্কাইভ

নির্বাচিত সংবাদ