বীরদের শ্রদ্ধা জানাতে প্রস্তুত জাতীয় স্মৃতিসৌধ

১৬ ডিসেম্বর মহান বিজয় দিবস। বিজয় দিবস উপলক্ষে জাতীয় বীরদের শ্রদ্ধা জানাতে সাভারের জাতীয় স্মৃতিসৌধের প্রস্তুতি সম্পন্ন হয়েছে।

এদিন রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, রাজনৈতিক ও সামাজিক-সাংস্কৃতিক সংগঠনসহ বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষ জাতীয় বীরদের প্রতি শ্রদ্ধা জানাবেন।

মহান বিজয় দিবসকে ঘিরে জাতীয় স্মৃতিসৌধে ৯ পদাতিক ডিভিশনের জিওসি মেজর জেনারেল আকবার হোসেনের নেতৃত্বে ও তত্ত্বাবধানে ইতিমধ্যে সব প্রস্তুতি সম্পন্ন করা হয়ছে। সেনাবাহিনী, নৌবাহিনী, বিমানবাহিনীসহ সামরিক বাহিনীর সদস্যরা তাদের চূড়ান্ত মহড়া ইতিমধ্যে শেষ করেছেন।

বিজয় দিবসের সূচনালগ্নের পর থেকে সাভারের জাতীয় স্মৃতিসৌধ ভরে উঠবে ফুলে ফুলে। এদিন সাভারের জাতীয় স্মৃতিসৌধ নতুন রূপে আবির্ভূত হয়।
মহান এ বিজয়ের দিনে সর্বস্তরের মানুষ মুক্তিযুদ্ধে শহীদ লাখো শহীদের সমাধিস্থল স্মৃতিসৌধে ফুলেল শ্রদ্ধা জানান। লাখো জনতা তাদের হৃদয়ের ভালোবাসা ও গভীর শ্রদ্ধায় বিনম্রচিত্তে ফুলে ফুলে ঢেকে দেবেন শহীদ বেদী।

যথাযোগ্য মর্যাদায় দিবসটি পালনে এরই মধ্যে শেষ হয়েছে জাতীয় স্মৃতিসৌধের সৌন্দর্য বর্ধনের কাজ। রং তুলির আচড়ে স্মৃতিসৌধের বিভিন্ন স্থাপনা সেজেছে আপন সাজে। হ্রদের পানি বদলিয়ে নতুন পানি দেয়া হয়েছে। বিভিন্ন জাতের ফুল গাছ লাগানো হয়েছে।

এবার আধুনিক যন্ত্রপাতিতে ধুয়ে মুছে চকচকে করা হয়েছে স্মৃতিসৌধ চত্বরের প্রতিটি স্থাপনা, স্মৃতিসৌধের পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতা ও নিরাপত্তার স্বার্থে ইতিমধ্যেই ১০ ডিসেম্বর থেকে ১৫ ডিসেম্বর পর্যন্ত জনসাধারণের প্রবেশাধিকার বন্ধ করে দিয়েছে কর্তৃপক্ষ। বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ স্থানে স্থাপন ৩২ পয়েন্টের বসানো হয়েছে কোজ সার্কিট ক্যামেরাও।

এছাড়া যে কোনো ধরনের অপ্রীতিকর ঘটনা এড়াতে আমিনবাজার থেকে স্মৃতিসৌধ পর্যন্ত কঠোর নিরাপত্তা নেওয়া হয়েছে। এবং জাতীয় স্মৃতিসৌধ এলাকার আইন-শৃঙ্খলা রায়ও নেয়া হয়েছে বাড়তি নিরাপত্তা ব্যবস্থা। গড়ে তোলা হয়েছে চার-স্তরের নিরাপত্তা বলয়।

সাভার উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ শেখ রাসেল হাসান বাংলাদেশ প্রতিদিনকে বলেন, রাষ্ট্রপতি, প্রধানমন্ত্রী শ্রদ্ধা জানানোর পর সকাল পৌনে ৭টায় জাতীয় স্মৃতিসৌধ সবার জন্য উন্মুক্ত করে দেওয়া হবে। এ লক্ষ্যে দফায় দফায় বৈঠক করেছেন প্রশাসনের বিভিন্ন পর্যায়ের কর্মকর্তাসহ গোয়েন্দা কর্মকর্তারা।

স্মৃতিসৌধ প্রাঙ্গণ সরেজমিনে ঘুরে দেখা যায়, দেড়শ ফুট উচ্চতাবিশিষ্ট মিনার থেকে শুরু করে ফুটপাত পর্যন্ত পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতার বিষয়ে তদারকি করছে কর্তৃপক্ষ। বিভিন্ন স্থাপনার সংস্কার করে রং লাগানো হয়েছে।

পানি পাল্টে নতুন করে পানি দিয়ে ভরে ফেলা হয়েছে কৃত্রিম হ্রদটি। এলাকার আকর্ষণ বাড়াতে প্রস্তুত রাখা হয়েছে পানির ফোয়ারা। সিভিল, ইলেকট্রনিকস ও উদ্যান উন্নয়ন বিভাগের কর্মকর্তা-কর্মচারীরা সকাল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত ব্যস্ত রয়েছেন। স্মৃতিসৌধের অভ্যন্তরে সাধারণ দর্শনার্থীদের প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হয়েছে।

loading...

নামাজের সময়সুচী

ফজর ভোর ০৪:৩৬ মিনিট
যোহর বেলা ১১:৫৩ মিনিট
আছর বিকেল ০৪:১১ মিনিট
মাগরীব সন্ধ্যা ০৫:৫৪ মিনিট
এশা রাত ০৭:০৯ মিনিট
সেহরী ভোর
ইফতার সন্ধ্যা

আর্কাইভ

নির্বাচিত সংবাদ