মৃত্যুদণ্ড প্রাপ্ত পটুয়াখালীর ৩ মানবতাবিরোধীর আপিল

মৃত্যুদণ্ড প্রাপ্ত পটুয়াখালীর ৩ মানবতাবিরোধীর আপিল


মানবতাবিরোধী অপরাধে পটুয়াখালীর ফাঁসির দণ্ডপ্রাপ্ত ৫ জনের মধ্যে তিনজন খালাস চেয়ে আপিল করেছেন।

তারা হলেন- আব্দুল গনি, মো. আউয়াল ও সোলায়মান মৃধা। বুধবার তাদের পক্ষে আইনজীবী আবদুস সাত্তার পালোয়ান এ আপিল আবেদন করেন।

আপিল করার বিষয়টি নিশ্চিত করে তিনি জানান, আপিল আবেদনের মূল ৭৫ পৃষ্ঠার সাথে ৫৫৬ পৃষ্ঠান নথিপত্র জমা দেয়া হয়েছে।

মৃত্যুদণ্ড পাওয়া পাচঁ আসামি হলেন- মো. ইসহাক সিকদার, আব্দুল গনি, মো. আউয়াল, মো. আব্দুস সাত্তার প্যাদা এবং সোলায়মান মৃধা।

মামলার (আইও) তদন্ত কর্মকর্তাসহ মোট ১১ জন আসামিদের বিপক্ষে সাক্ষ্য দিয়েছেন। এদের মধ্যে ছয়জন মুক্তিযুদ্ধের সময় আসামিদের মাধ্যমে ধর্ষণের শিকার হয়েছেন। আর তদন্ত কর্মকর্তা ছাড়া বাকি সাক্ষীরা ভুক্তোভোগী পরিবারের সদস্য।

২০১৭ সালের ৮ মার্চ পটুয়াখালীর এ পাঁচজনের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করেন ট্রাইব্যুনাল। আসামিদের বিরুদ্ধে হত্যা, গণহত্যা, ১৫ নারীকে ধর্ষণ, আটক, নির্যাতন, অপহরণ, লুটপাট ও অগ্নিসংযোগের ১৬টি মানবতাবিরোধী অপরাধের অভিযোগ আনা হয়েছে।

এর মধ্যে এখনও ৮ জন বীরাঙ্গনা জীবিত আছেন। এর ভিত্তিতে আনুষ্ঠানিক অভিযোগ (ফরমাল চার্জ) দাখিল করেন প্রসিকিউশন।

মামলার তদন্ত শুরু হয় ২০১৪ সালের ২৫ নভেম্বর। ১ বছর ৫ মাস ৯ দিন তদন্ত করে ৫০৮ পৃষ্ঠার চূড়ান্ত প্রতিবেদন তৈরি করেন তদন্তকারী কর্মকর্তা সত্যরঞ্জন রায়।
মামলার অভিযোগ প্রমাণের জন্য ৫১ জনের জবানবন্দি নেয়া হয়েছে, যারা সাক্ষী হিসেবে ট্রাইব্যুনালে সাক্ষ্য দেন।

২০১৫ সালের ২৩ সেপ্টেম্বর ৫ রাজাকারের বিরুদ্ধে পরোয়ানা জারির পর ১ অক্টোবর তাদের গ্রেফতার করা হয়। ২০১৬ সালের ১৩ অক্টোবর এই পাঁচজনের বিরুদ্ধে আনুষ্ঠানিক অভিযোগ দাখিল করে প্রসিকিউশন।

এর ভিত্তিতে ১৩ অক্টোবর আনুষ্ঠানিক অভিযোগ (ফরমাল চার্জ) দাখিল করেন প্রসিকিউশন।

loading...

৭ ই মার্চ কথাটি শুনলেই মনের ভিতর জেগে উঠে একটি স্পন্দন। একটি বাজনা, একটি হুঙ্কার ও মুক্তির দমামা।মনে পড়ে যায় অসংখ্য প্রিয়জন হারানোর বেদনা ।

মানুষজন একটি দিনের ভাষণকে মনে কর... Read More

নামাজের সময়সুচী

ফজর ভোর ০৪:৩৬ মিনিট
যোহর বেলা ১১:৫৩ মিনিট
আছর বিকেল ০৪:১১ মিনিট
মাগরীব সন্ধ্যা ০৫:৫৪ মিনিট
এশা রাত ০৭:০৯ মিনিট
সেহরী ভোর
ইফতার সন্ধ্যা

আর্কাইভ

নির্বাচিত সংবাদ