স্ত্রীকে হত্যা করে লাশে লবণ মাখিয়ে রেখেছিল স্বামী

The husband took his wife body to the hospital with salt

নারায়ণগঞ্জ বন্দর উপজেলা এলাকায় শান্তা (২৫) নামে এক গৃহবধূকে হত্যার অভিযোগে স্বামী আমিরুল ইসলামকে (৩৫) গ্র্রেফতার করেছে পুলিশ। মাথায় আঘাতপ্রাপ্ত শরীরে লবণ মাখানো ও কম্বলে মোড়ানো অবস্থায় গৃহবধূর শান্তার লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ।

দুপুরে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের জরুরি বিভাগে লাশ রেখে পালিয়ে যাওয়ার সময় স্বামী আমিনুল ইসলামকে আটক করে পুলিশে সোপর্দ করে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ।

নিহত শান্তা আক্তার সোনারগাঁও উপজেলার বারদী এলাকার কলিম উল্লাহর মেয়ে। আটক আমিনুল বন্দর গার্লস স্কুল অ্যান্ড কলেজের গণিতের শিক্ষক এবং বন্দর উপজেলার রাজবাড়ি এলাকার বাসিন্দা।

বন্দর থানার ওসি ফখরুদ্দীন ভূঁইয়া জানান, আমিনুল ইসলাম তার স্ত্রীকে হত্যা করে শরীরে লবণ মাখিয়ে কম্বল পেঁচিয়ে লাশ ভাড়া বাসায় রেখে দেন। মঙ্গলবার দুপুরে নিজেই স্ত্রীর লাশ নিয়ে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে যান।

চিকিৎসক লাশের মাথায় আঘাতের চিহ্ন দেখতে পান এবং লাশটি ২-৩ দিন আগের বলে সন্দেহ করেন। এরপর হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ লাশটি জরুরি বিভাগে রেখে আমিনুলকে আটক করে থানায় খবর দেয়।

আরও পড়ুনঃ টিকটক ভিডিও করতে এসে গণধর্ষণের শিকার স্কুলছাত্রী

ওসি আরো জানান, পুলিশ দ্রুত ঘটনাস্থলে গিয়ে নিহতের স্বামীকে থানায় নিয়ে যায়। লাশ নারায়ণগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে। আমিনুল ইসলামকে জিজ্ঞাসাবাদ অব্যাহত। হত্যার কারণ বলা সম্ভব হচ্ছে না।