স্কুল ছাত্রীকে পালাক্রমে ধর্ষণের পর ডোবায় ফেলা হয়

School student in turn

বরিশালের উজিরপুরের সাতলা এলাকায় সপ্তম শ্রেণির এক স্কুল ছাত্রীকে পালাক্রমে ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে দুই বখাটের বিরুদ্ধে।

ধর্ষণ শেষে ওই ছাত্রীর মুখে পলিথিন পেঁচিয়ে একটি ডোবায় বাঁশের সাথে বেঁধে রাখে তারা। এ ঘটনায় জড়িত থাকার অভিযোগে অভিযুক্ত দুইজনকে পুলিশ আটক করেছে।

আটককৃতরা হলো নুরুল ইসলাম (১৮) ও তরিকুল ইসলাম (১৯)। এদের মধ্যে তরিকুলের বাড়ি গোপালগঞ্জে এবং নুরুল ইসলামের বাড়ি বরিশালের আগৈলঝাড়া উপজেলায়।

পুলিশ ও স্থানীয়রা জানায়, জল্লা ইউনিয়নের কুড়ালিয়া মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের সপ্তম শ্রেণির ওই ছাত্রী (১৩) গত বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় একটি হাঁস খুঁজতে পাশের একটি মাছের ঘেরে গেলে ওই ঘেরের দুই শ্রমিক তাকে আটকে রাখে।

আরও পড়ুনঃ শ্বশুরবাড়ি বেড়াতে গিয়ে স্কুল ছাত্রীকে ধর্ষণ

পরে ওই রাতে তাকে একটি মুরগীর খামারে নিয়ে দুই শ্রমিক পালাক্রমে ধর্ষণ করে। ধর্ষণ শেষে তার মুখে পলিথিন পেঁচিয়ে একটি ডোবায় বাঁশ পুতে ওই বাঁশের সাথে তাকে বেঁধে রাখে তারা।
রাতে পরিবার ও এলাকাবাসী খুঁজতে মাছের ঘেরে গিয়ে ওই ছাত্রীকে ডোবায় বাঁধা অবস্থায় উদ্ধার এবং অভিযুক্ত দুই জনকে আটক করে।

রাতেই পুলিশে খবর দেয়া হলে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে ছাত্রীকে তাদের হেফাজতে নেয় এবং অভিযুক্ত দুইজনকে আটক করে।

এ ঘটনায় অভিযুক্তদের কঠোর বিচার দাবি করেছেন ধর্ষিতা এবং তার পরিবারের সদস্যরা। এদিকে ধর্ষিতা ছাত্রীকে ডাক্তারিরী পরীক্ষার জন্য আজ শেরে-ই বাংলা মেডিকেলে প্রেরণ করেছে উজিরপুর থানা পুলিশ।

অভিযুক্ত দুইজনের বিরুদ্ধে মামলা দায়েরসহ যথাযথ আইনগত ব্যবস্থা নেয়ার কথা জানিয়েছেন বরিশালের পুলিশ সুপার মো. সাইফুল ইসলাম।

0 Shares
  • 0 Facebook
  • Twitter
  • LinkedIn
  • Mix
  • Email
  • Print
  • Copy Link
  • More Networks
Copy link
Powered by Social Snap