শায়েস্তাগঞ্জ স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ কেন্দ্রে চিকিৎসাসেবা থেকে বঞ্চিত মানুষজন!

Tanvir Chowdhury

হবিগঞ্জের শায়েস্তাগঞ্জ উপজেলার অধীনে থাকা নুরপুর ইউপি ও শায়েস্তাগঞ্জ ইউপি স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ কেন্দ্রগুলো নানাবিধ সমস্যার সম্মুখীন।

উল্লেখিত ওই দুই স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ কেন্দ্রে লোকবল সংকটসহ বিভিন্ন সমস্যায় জর্জরিত থাকায় চিকিৎসাসেবা থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন শায়েস্তাগঞ্জের মানুষজন।

প্রথমত নুরপুর ইউনিয়ন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ কেন্দ্রটির কিছুদিন আগে অবকাঠামোগত কিছু উন্নয়ন করা হলেও অবশিষ্ট অংশ এখনও অবহিত। ওই স্বাস্থ্য কেন্দ্রটিতে সীমানা প্রাচীর না থাকায় এতে নিরাপত্তার অভাব রয়েছে। বৃষ্টি হলেই এ কেন্দ্রটির দুটি কক্ষের ভেতরে পানি পড়ার কারণে কক্ষগুলো পরিত্যক্ত ঘোষণা করা হয়েছে। নুরপুর ইউনিয়ন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ কেন্দ্রটিতে বেশ কয়েকবছর ধরে ফার্মাসিস্টের পদটি শূন্য রয়েছে।

এ বিষয়ে নুরপুর ইউনিয়ন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ কেন্দ্রের উপ-সহকারী ডা. বিঞ্চু পদ রায় বলেন, বর্তমানে আমাদের কেন্দ্রে এনভেলাপসহ মোট ২৩ রকমের ওষুধ দেওয়া হয়। এই পরিবার কল্যাণ কেন্দ্রটি নানান সমস্যায় থাকলেও আমরা যথাযথ সেবা দিয়ে যাচ্ছি। এ কেন্দ্রের পরিবার পরিকল্পনা পরিদর্শক গীতা রানী দেব জানান, এ কেন্দ্র থেকে গত ১ বছরে ৩৫টি নরমাল ডেলিভারি করা হয়েছে। প্রত্যন্ত অঞ্চল হওয়ায় রাতের বেলা রোগীদের নিয়ে সমস্যায় পড়তে হয়।

দ্বিতীয়ত শায়েস্তাগঞ্জ ইউনিয়ন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ কেন্দ্রেও রয়েছে নানা সমস্যা। গত বছর লোকবল সংকটের কারণে কোনো ডেলিভারি সেবা দেয়া হয়নি এখানে। এ কেন্দ্রে নেই কোন পরিদর্শক নেই ফার্মাসিস্ট ও নাইট গার্ড। এছাড়া কোয়ার্টারের জানালাগুলো ভাঙা। অনেক পুরাতন ভবনটি সংস্কার না করায় এটি ঝুঁকিপূর্ণ অবস্থায় রয়েছে। কেন্দ্রের কোয়ার্টারে পয়ঃনিষ্কাশন ব্যবস্থা নাই। তাছাড়া নিরাপত্তা সংকটের কারণে এখানে ২৪ ঘন্টা সেবা দেয়া যাচ্ছে না। ফলে এ অঞ্চলের মানুষজন এ কেন্দ্র থেকে কাঙ্ক্ষিত সেবা পাচ্ছেন না।

এ বিষয়ে শায়েস্তাগঞ্জ ইউনিয়ন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ কেন্দ্রের উপ-সহকারী ডা. নুসরাত জাহান রুমা বলেন, আমাদের এ কেন্দ্রের নানান সমস্যার বিষয়ে অফিসিয়ালি ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে জানানো হয়েছে। এই কেন্দ্রে মূলত আমরা দুইজন দায়িত্বপালন করি। তবে একজন পরিদর্শক হবিগঞ্জের পৈল থেকে এসে সপ্তাহে দুইদিন অতিরিক্ত দ্বায়িত্বপালন করে থাকেন।

শায়েস্তাগঞ্জ উপজেলার পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা রওশন আরা বেগম বলেন, শায়েস্তাগঞ্জ উপজেলায় দুটি ইউনিয়ন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ কেন্দ্র রয়েছে। তবে লোকবলের সংকটের কারণে শতভাগ সেবা দেওয়া সম্ভব হচ্ছে না। পরিবার কল্যাণ কেন্দ্রগুলোতে কি কারণে শূন্যপদে লোক নিয়োগ দেওয়া হচ্ছে না? জানতে চাইলে তিনি বলেন, এ বিষয়ে ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ বলতে পারবেন।

মোজাম্মেল হায়দার চৌধুরী শায়েস্তাগঞ্জ (হবিগঞ্জ) প্রতিনিধি

0 Shares
  • 0 Facebook
  • Twitter
  • LinkedIn
  • Mix
  • Email
  • Print
  • Copy Link
  • More Networks
Copy link
Powered by Social Snap