শায়েস্তাগঞ্জে দুধ-ডিম ও মাংসের ভ্রাম্যমান বিক্রয় কেন্দ্রে উপচে পড়া ভীড়!

Muzammel Hydar, Shayestaganj

দেশব্যাপী করোনা পরিস্থিতিতে জনসাধারণের প্রানিজ পুষ্টি চাহিদা নিশ্চিত করণের লক্ষ্যে ভ্রাম্যমাণ বিক্রয় কেন্দ্রের মাধ্যমে দুধ, ডিম ও মাংস বিক্রির উদ্যোগ নিয়েছে সরকার। এ কর্মসূচির অংশ হিসেবে হবিগঞ্জের শায়েস্তাগঞ্জেও ন্যায্যমূল্যে বিক্রি করা হচ্ছে দুধ, ডিম ও মাংস।

শায়েস্তাগঞ্জ উপজেলার দাউদনগর বাজার, পুরান বাজার, সুতাং, অলিপুর ও পুরাইকলা বাজারে ভ্রাম্যমান পিকআপে করে বিক্রি করা হচ্ছে এসব পণ্য। প্রথম দিকে ক্রেতাদের আগ্রহ কম থাকলেও ক্রমশ বাড়ছে ক্রেতাদের ভীড়।

ফলে ক্রেতাদের ভীড় সামাল দিতে রীতিমতো হিমশিম খাচ্ছেন বিক্রয় প্রতিনিধিরা। শুক্রবার বিকেলে সরেজমিনে দাউদনগর বাজারে গিয়ে দেখা যায়, হাসের ডিম প্রতি হালি ৩৫ টাকা, গরুর দুধ প্রতি লিটার ৬০ টাকা এবং ব্রয়লার মোরগ প্রতি কেজি ১১০ টাকায় বিক্রি করা হচ্ছে। বাজার দরের চেয়ে কম মূল্যে বিক্রি হওয়া এসব পণ্য কিনতে আসা ক্রেতারা মানছেন না স্বাস্থবিধি।

অনেকটা গাদাগাদি করে দাঁড়িয়ে কিনছেন পণ্য। আব্দুস সালাম নামে এক ক্রেতা জানান, গাড়িতে করে যে পরিমান ডিম, দুধ ও মাংশ নিয়ে আসা হয়েছে তা ১ থেকে দেড় ঘন্টায়ই শেষ হয়ে যায়। মানুষের চাহিদা অনুযায়ী আরও পণ্য বাড়ানো দরকার। এ ব্যাপারে ভ্রাম্যমাণ বিক্রয় কেন্দ্র প্রতিনিধি সৌরভ পাল চৌধুরী জানান, আমরা প্রত্যেকদিন ৬শ ৫০ পিছ ডিম, আড়াইশ লিটার দুধ এবং ৭০ কেজি মাংস বিক্রি করছি। আমরা স্বাস্থবিধি মেনে পণ্য বিক্রির চেষ্টা করি। এ বিষয়ে শায়েস্তাগঞ্জ উপজেলা প্রাণী সম্পদ কর্মকর্তা ডাঃ রমাপদ দে বলেন প্রথমে মানুষের খুব একটা আগ্রহ না পেলেও এখন ভ্রাম্যমান বিক্রয় কেন্দ্রে ভীড় লেগেই থাকে। প্রতিদিনই মানুষ ন্যাযমূল্যে দুধ, ডিম ও মাংস কিনতে পারছেন। ১১ এপ্রিল থেকে পুরো উপজেলায় ভ্রাম্যমান বিক্রয় কেন্দ্র দুধ ডিম ও মাংস বিক্রি করছে। টানা ৪০ দিন পর্যন্ত এ কার্যক্রম চলবে।

মোজাম্মেল হায়দার,শায়েস্তাগঞ্জ (হবিগঞ্জ) প্রতিনিধি