রোহিঙ্গাদের প্রত্যাবাসনে প্রস্তুত ট্রানজিট পয়েন্ট, নেয়া হয়েছে বাস ট্রাক

the rohingya crisis

মিয়ানমারের নির্যাতিত রোহিঙ্গাদের ফেরত পাঠানোর প্রথম পদক্ষেপ হিসেবে আজ বৃহস্পতিবার ৩০০ জনকে ফেরত পাঠানোর প্রস্তুতি নেয়া হয়েছে।

প্রস্তুত রাখা হয়েছে টেকনাফের কেরুনতলী ও নাইক্ষ্যংছড়ি। ৫টি বাস ও ৩টি ট্রাক সকাল থেকে টেকনাফের শালবন ক্যাম্পে রাখা হয়েছে। মিয়ানমারগামী রোহিঙ্গাদের মালপত্র বহনে এসব পরিবহন ব্যবহার করা হবে।

নাফ নদীর কিনারে কেরুনতলী প্রত্যাবাসন ঘাটে রোহিঙ্গাদের সাময়িক অবস্থানের জন্য ৩৩টি ঘর ও অন্যান্য সুবিধাদি প্রস্তুত রাখা হয়েছে।

জলপথে প্রত্যাবাসন হলে এঘাট দিয়েই রোহিঙ্গাদের ফেরত পাঠানো হবে। অপরদিকে, স্থল পথে প্রত্যাবাসন হলে বান্দরবন জেলার নাইক্ষ্যংছড়ির ঘুমধুম ঘাট দিয়ে রোহিঙ্গাদের স্বদেশে ফেরত পাঠানো হবে।

প্রত্যাবাসন তালিকায় থাকা ৩ হাজার ৪৫০ জন মূলত ১ হাজার ৩৩ পরিবারের সদস্য। তাদের মধ্যে যে ২৩৫ পরিবারের সাক্ষাৎকার সম্পন্ন হয়েছে, যাচাই-বাছাই করে তাদের মধ্য থেকে ফিরতে ইচ্ছুকদের চূড়ান্ত করা হয়েছে।

আরও পড়ুনঃ ২১ আগস্টে নিহতদের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন

প্রত্যাবাসন কমিশনার আবুল কালাম জানান, ২২ আগস্টকে টার্গেট করে প্রত্যাবাসনের প্রস্তুতি নেওয়া হয়েছে।

তবে এ তারিখ থেকেই ফেরত পাঠানো শুরু করতে হবে এমন কোনো বাধ্যবাধকতাও নেই। আর রোহিঙ্গাদের ইচ্ছার বিরুদ্ধে কাউকে জোর করে পাঠানো হবে না, এ ব্যাপারেও নীতিগত সিদ্ধান্ত রয়েছে।

0 Shares
  • 0 Facebook
  • Twitter
  • LinkedIn
  • Mix
  • Email
  • Print
  • Copy Link
  • More Networks
Copy link
Powered by Social Snap