মাহফিল থেকে ফুসলিয়ে নিয়ে তাবাচ্ছুমকে ধর্ষণের পর হত্যা

I took it from Waz mahfil in Dhunat upazila of Bogra

বগুড়ার ধুনট উপজেলায় ওয়াজ মাহফিল থেকে ফুসলিয়ে নিয়ে গিয়ে তাবাচ্ছুম নামের ৭ বছর বয়সী এক শিশুকে ধর্ষণের পর শ্বাসরোধ করে হত্যার অভিযোগ পাওয়া গেছে। সোমবার (১৪ ডিসেম্বর) দিবাগত রাত ১টায় উপজেলার চৌকিবাড়ী ইউনিয়নের নসরতপুর গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। নিহত তাবাচ্ছুম ওই গ্রামের বেল্লাল হোসেন খোকনের মেয়ে।

গ্রামবাসী ও থানা পুলিশ সূত্রে জানা যায়, সোমবার দিবাগত ৮টায় তাবাচ্ছুম বাড়ি থেকে তার দাদা আব্দুস সবুর এবং তার দাদী ও দুই ফুপির সঙ্গে বাড়ির অদূরে ওয়াজ মাহফিল শুনতে যায়। সেখানে তাবাচ্ছুম স্বজনদের রেখে একা একা মাহফিলের মাঠে ঘোরাঘুরি করছিল।

কিন্তু রাত ১০টার পর তাবাচ্ছুম নিখোঁজ হয়। এরপর স্থানীয় লোকজন তাকে খুঁজতে থাকে। পরে রাত ১টায় ওই গ্রামের বাদশা মিয়ার বাঁশ ঝাড়ে তাবাচ্ছুমের মৃতদেহ পাওয়া যায়। প্রাথমিক ভাবে ধারণা করা হচ্ছে ওয়াজ মাহফিল থেকে ফুসলিয়ে নিয়ে গিয়ে শিশু তাবাচ্ছুমকে প্রথমে ধর্ষণ করে। পরে তাকে শ্বাসরোধ করে হত্যা করা হয়েছে।

ধুনট থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) কৃপা সিন্ধু বালা বলেন, শিশু তাবাচ্ছুম দাদা-দাদীর সঙ্গে ওয়াজ মাহফিলে যাবার পর নিঁখোজ হয়। স্থানীয় লোকজন রাত ১টায় একটি বাঁশঝাড় থেকে তার মৃতদেহ উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে আসেন। চিকিৎসক শিশু তাবাচ্ছুমের মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ডাক্তারী পরীক্ষা ও ময়না তদন্তের রিপোর্ট ছাড়া কিছু বলা সম্ভব নয়। তবে প্রাথমিকভাবে স্থানীয় লোকজনের মত আমরাও ধারনা করছি ধর্ষণের পর তাবাচ্ছুমকে শ্বাসরোধ করে হত্যা করা হয়েছে।

আরও পড়ুনঃ শারীরিক সম্পর্কের পর শ্বাসরোধে প্রেমিকাকে হত্যা

পুলিশ ঘটনাটি তদন্ত করছে। এছাড়া মৃতদেহের ময়নাতদন্তের জন্য লাশ মর্গে পাঠানোর ব্যবস্থা করেছে। এ ঘটনায় থানায় মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে।