বিমানবন্দরই যখন অসামাজিক কার্যকলাপের অভয়ারণ্য

When the airport is a sanctuary of antisocial activity

বিমানবন্দরই যখন অসামাজিক কার্যকলাপের অভয়ারণ্য। শহরের মধ্যে তেমন কোনো বিনোদনের স্থান না থাকায় স্থানীয়রা সেখানে ঘুরতে যান। কিন্তু বিভিন্ন যুগলের প্রকাশ্য অসামাজিক কার্যকলাপে পরিবার-পরিজন নিয়ে যাওয়াদের পড়তে হচ্ছে বিপাকে।

স্থানীয় বাসিন্দা রফিক জানান, দীর্ঘদিন ধরে এখানে অসামাজিক কার্যকলাপ চলে আসছে। কিন্তু কেউ কিছু বলে না।

বিধান পাল নামে আরেকজন বলেন, প্রায় দিনই একাধিক যুগল আসে। কেউ কথা বলে, কেউ আড্ডা দেয়। আবার কেউ কেউ অসামাজিক কার্যকলাপেও লিপ্ত হয়।

ফলে যারা পরিবার নিয়ে একটু বিনোদনের জন্য ঘুরতে আসেন, প্রায়ই তাদের বিব্রতকর অবস্থায় পড়তে হচ্ছে। আমরাও মাঝে মধ্যে বিপাকে পড়ি। কার কাছে বলব? কে আবার ক্ষতি করবে? এখানে সবাই মোটরসাইকেল নিয়ে কাজ শেষ করে চলে যায়। এগুলো দেখেও চোখ বন্ধ করে থাকতে হয়।

দর্শনার্থী গোলাম আহাদ বলেন, শহরের মধ্যে বিনোদনের কোনো স্থান না থাকায় বুধবার (১৮ ডিসেম্বর) বিকেলে কৃষি বিমানবন্দর এলাকায় ঘুরতে যাই।

সেখানে যাবার পরে প্রকাশ্যে এক যুগলের অসামাজিক কার্যকলাপে বিপাকে পরি। নৌবাহিনীর সদস্যদের জানালে তারা আসার পর সেই যুগল স্থান ত্যাগ করে।

দর্শনার্থী গোলাম মাহিম ক্ষুব্ধ কণ্ঠে বলেন, অসামাজিক কার্যকলাপ করতে হলে নিজের বাসায় বা আবাসিক হোটেলে গিয়ে করুক। যারা প্রকাশ্যে এরকম করে তাদের লজ্জা না করলেও আমাদেরতো আছে। স্থানীয় বাচ্চারাা এটা দেখে কী শিক্ষা গ্রহণ করবে?

আরও পড়ুনঃগৃহবধূকে ভয় দেখিয়ে গণধর্ষণ

সুশীল সমাজের প্রতিনিধি সৈয়দ কিশোর বলেন, পটুয়াখালীতে এমন অশ্লীলতা আগে দেখিনি। এ ঘটনা পশ্চিমা বিশ্বকেও হার মানায়। এখন যদি এদের ঠেকানো না যায় তবে যুব সমাজ বিপথে যাবে। ধর্ষণের ঘটনাও বাড়বে। সরকারের উচিত এখনই এর বিরুদ্ধে কঠোর পদক্ষেপ নেয়া।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক নৌবাহিনীর এক কর্মকর্তা জানান, ভুল শিকার করায় সাধারণ ক্ষমা করে ওই যুগলকে স্থান ত্যাগ করার অনুমতি দেয়া হয়। এখানে বক্তব্য দিতে গেলে ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের অনুমতি নিতে হবে।

জেলার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (হেডকোয়ার্টার) মো. শেখ বেলাল জানান, তাদের একটি টিম ওই এলাকায় কাজ করবে। ঘটনার সত্যতা পাওয়া গেলে, আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

0 Shares
  • 0 Facebook
  • Twitter
  • LinkedIn
  • Mix
  • Email
  • Print
  • Copy Link
  • More Networks
Copy link
Powered by Social Snap