বদলগাছী তে রাস্তায় মাটি দেওয়াকে কেন্দ্র করে চাচার হাতে ভাতিজা খুন

Md Rahmatullah Ashike

বদলগাছী মথুরাপুর ইউনিয়নের দূর্গাপুর-সন্ন্যাসতলায় নিজের চাচার হাতে ভাতিজাকে হত্যার ঘটনা ঘটেছে।নিহত ব্যক্তি বদলগাছী উপজেলার মথুরাপুর ইউনিয়নের সন্যাসতলা দূর্গাপুর গ্রামের মৃত ওমর আলীর ছেলে জবাইদুল ইসলাম (৫১) । ৩ ডিসেম্বর,শুক্রবার সকাল দশটায় জমিজমাসংক্রান্ত বিরোধের জেরে এ হত্যাকাণ্ড ঘটেছে বলে জানা যায়।

স্থানীয় এলাকাবাসী সূত্রে জানায়, রাস্তায় মাটি দেওয়া কে কেন্দ্র করে মৃত জবাইদুলের চাচা আব্দুল খালেক এবং তার ছেলে বেলাল হোসেন দু -জন মিলে জবাইদুল ইসলাম কে মারতে গেলে লাঠির বারি উঠালে জবায় দুল তাতে বাধাদেন তাতে কথা কাটাকাটির এক পর্যায়ে আব্দুল খালেক তাকে গলা টিপে ধরলে সে মাটিতে লুটিয়ে পড়ে ওমুখ দিয়ে জিহ্বা বেরকরে তাকে গলা ছেড়ে দেন পরে অবস্থার অবনতি হলে চিকিৎসার জন্য জয়পুরহাট সদর হাসপাতালে নিলে। সেখানে প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে উন্নত চিকিৎসার জন্য কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে বগুড়ার শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে রেফার্ড করেন।এরপর অ্যাম্বুলেন্সে তোলার পর দুপুর ৩.০০ টায় তার মৃত্যু হয়।

মৃত জবাইদুলের ছেলের স্ত্রী কমেলা ও এলাকাবাসী জানায়,আমার শ্বশুর সকাল ১০টার দিকে একটি কোদাল হাতে নিয়ে মেইন রাস্তা থেকে ধান ভাঙ্গা মিলের পাশ দিয়ে আমাদের বাড়ি আসার ভাঙ্গা রাস্তা ঠিক করার জন্য মাটি দিতে যায়। এসময় আমার চাচা শশুর আব্দুল খালেক সেখানে গিয়ে রাগান্বিত হয়ে বলে আমার জমি থেকে মাটি কাটলি কেন?এ-র পর কথা কাটাকাটির এক পর্যায়ে আমার শশুর জবাইদুলকে গলাটিপে ধরে।কিছুক্ষণপর আবার চাচা শ্বশুরের ছেলে বেলাল হোসেন (সন্ন্যাসতলা স্কুলের শিক্ষক) লাঠি নিয়ে যায় এবং মারপিট করতে থাকলে অবস্হা অনেক খারাপ হয়। কিছুক্ষণপর অবস্থা আরো খারাপ হতে থাকলে আমার শাশুড়ী সহ কয়েকজন তাকে পাহাড়পুর ডাক্তারের কাছে ও তারপর জয়পুরহাট হাসপাতালে নিয়ে যায়।এরপর শুনচ্ছি আমার শ্বশুর মারা গেছেন।

বিষয়টি জানতে আব্দুল খালেকের বাসায় গেলে তার পুত্রবধু ছাড়া কাউকে পাওয়া যায়নি। পুত্রবধু পারুল বলেন,আমার শ্বশুরের গন্ডগোলের খবর পেয়ে আমার স্বামী ছোট্ট একটি লাঠি হাতে নিয়ে বাহিরে যায়।তারপর আর কিছু জানিনা। এবং কথা বলতে অনিচ্ছুক বলে জানায়

উল্লেখ্য যে ঘাতক আব্দুল খালেক সন্ন্যাসতলার ম্যাজিস্ট্রেট (বর্তমান পশ্চিমবঙ্গ রেলওয়ে কর্মকর্তা) মোঃ রেজাউল ইসলামের বাবা।

তবে নিহত জবায়দুল ইসলামের ছোট ভাই মো: ওবায় দুল ইসলাম বলেন আাদের কে আব্দুল খালেক জমি সংক্রান্ত জের ধেরে রাস্তা দিয়ে জাইতে না দেওয়ার জন্য প্রাচীর বানানোর জন্য গর্ত করে প্রাচীর তৌরীর কাজ করছে এতে আমাদের রাস্তা দিবে না বলে জানান। কান্না জড়িত কন্ঠে বলেন তাছাড়া চাচার সাথে আমাদের কোন শত্রুতা নেই আমরা এতিম অসহায় আমি আমার ভাই কে মারার সঠিক বিচার চাই।
বদলগাছী থানার অফিসার ইনচার্জ(ওসি) আতিকুল ইসলাম সাংবাদিক দের জানান,আমাদের কাছে খবর এসেছে যে চাচার হাতে ভাতিজাকে খুনের ঘটনা ঘটেছে। এখনো মামলা হয়নি-তবে মামলা গ্রহণ প্রক্রিয়াধীন।নিহতের লাশ ময়নাতদন্তের পর পর বোঝা যাবে এটি হত্যা নাকি আত্মহত্যা।হত্যা প্রমাণিত দোষীদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।
রহমতউল্লাহ,নওগাঁ জেলা প্রতিনিধি

0 Shares
  • 0 Facebook
  • Twitter
  • LinkedIn
  • Mix
  • Email
  • Print
  • Copy Link
  • More Networks
Copy link
Powered by Social Snap