ফাহিম সালেহকে খুনের পর কেন বেলুন কিনেছিলেন খুনি ডেভন?

assistant Tyrese Haspil

বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের প্রযুক্তি উদ্যোক্তা ফাহিম সালেহকে খুন করে পার্টি করার প্রস্তুতি নিচ্ছিলেন তার ব্যক্তিগত সহকারী টাইরেস ডেভন হ্যাসপিল।

মার্কিন জনপ্রিয় সংবাদ মাধ্যম নিউইয়র্ক পোস্ট এ তথ্য প্রকাশ করেছে।

যুক্তরাষ্ট্রের স্থানীয় সময় শনিবার (১৮ জুলাই) প্রকাশিত একটি ভিডিওতেও তেমন কিছুরই প্রমাণও মিলেছে।

রাইড শেয়ারিং অ্যাপ পাঠাও’র সহ-প্রতিষ্ঠাতা ফাহিমকে খুন করার দুদিনের মাথায় ডেভনকে একজন রহস্যময় তরুণীর সঙ্গে সময় কাটাতে দেখা গেছে। শপিং করার পাশাপাশি জন্মদিনের বেলুন কিনতে দেখা গেছে তাকে।

ডেভন যে বেলুন কিনেছেন সেটি ছিল ২২ লেখা। অর্থাৎ তার বান্ধবীর ২২তম জন্মদিনের পার্টি উদযাপনের প্রস্তুতি শুরু করেছিলেন ডেভন। নিউইয়র্ক পুলিশ এমনটাই জানিয়েছে।

ভিডিওটিতে দেখা গেছে, ডেভন শপিংয়ে যাওয়ার জন্য ক্যাব খুঁজছিলেন। সেখান থেকে একটু সামনে এগিয়ে এসে একটি গাড়ি থেকে ২২ লেখা দুটি বেলুন কেনেন। আর তিনি যা কিছু কেনাকাটা করেছেন সবই করেছেন ফাহিমের ক্রেডিট কার্ড ব্যবহার করে।

আরও পড়ুনঃ করাত দিয়ে কেটে কয়েক টুকরো করা হয় ফাহিম সালেহকে

ডেভনকে পুলিশ আমেরিকার নতুন ‘সাইকো’ বলে হিসেবে উল্লেখ করেছে।

উল্লেখ্য, সম্প্রতি ম্যানহাটনে নিজের অভিজাত অ্যাপার্টমেন্টে খুন হন ফাহিম সালেহ (৩৩)। লিফটের মধ্যে থাকা সিকিউরিটি ক্যামেরায় দেখা গেছে, অ্যাপার্টমেন্টের লিফটে ফাহিমের সঙ্গেই প্রবেশ করেছিল সম্পূর্ণ কালো পোশাক পরিহিত হত্যাকারী।

পুলিশ যাকে তার ব্যক্তিগত সহকারী হিসেবে চিহ্নিত করেছে। লিফটে সে ফাহিমের সঙ্গে কিছু কথাবার্তাও বলেছিল।

লিফট থেকে বের হওয়ার পর ফাহিমের পেছনে আসা হত্যাকারী তার হাত উঁচু করে। এরপরই ফাহিম মেঝেতে পড়ে যান। পুলিশের ধারণা, হত্যাকারী ট্যাজার গান দিয়ে বৈদ্যুতিক শক ছুড়ে মারায় জ্ঞান হারিয়ে ফেলেছিলেন ফাহিম।

লিফটের দরজা এরপর বন্ধ হয়ে যাওয়ায় এরপরের ঘটনাগুলোর ভিডিও রেকর্ড পাওয়া যায়নি। পরে তাকে অ্যাপার্টমেন্টের ভেতরে নিয়ে ছুরিকাঘাত করা হয় বলে অনুমান পুলিশের। নিউ ইয়র্ক সিটির ময়নাতদন্তকারী চিকিৎসক জানিয়েছেন, গলা ও কাঁধে একাধিক ছুরিকাঘাতে নিহত হন ফাহিম।

0 Shares
  • 0 Facebook
  • Twitter
  • LinkedIn
  • Mix
  • Email
  • Print
  • Copy Link
  • More Networks
Copy link
Powered by Social Snap