প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ৭৪ তম জন্মদিন - Metronews24 প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ৭৪ তম জন্মদিন - Metronews24

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ৭৪ তম জন্মদিন

Prime Minister Sheikh Hasina 84th birth anniversary

প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনার ৭৪ তম জন্মদিন আজ সোমবার (২৮ সেপ্টেম্বর)। রাজনৈতিক পরিবারে জন্ম, নেতৃত্ব তাঁর সহজাত।

এক সংগ্রামী জীবনে নানা চড়াই-উতরাই পেরিয়ে কর্মী থেকে হয়েছেন নেতা। এখন উন্নত বাংলাদেশের পথিকৃৎ, বিশ্ব শান্তির অগ্রদৃত। তিনি রাষ্ট্রনায়ক শেখ হাসিনা। ১৯৪৭ সালের এই দিনে গোপালগঞ্জের টুঙ্গিপাড়া গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন তিনি।

পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান পাকিস্তানের  শোষণমূলক নীতির বিরুদ্ধে সংগ্রাম করতেই জীবনের বেশিরভাগ সময় পার করে দেন।

ছাত্রনেতা হিসেবে শেখ হাসিনা স্বাধীনতাপূর্ব আন্দোলনে অংশগ্রহণ করেন। ১৯৬২-এর আইয়ুব বিরোধী আন্দোলনে তাঁর সক্রিয় অংশগ্রহণ ছিল। ইডেন কলেজ ছাত্রী সংসদের সহসভাপতি হিসেবে তিনি দেশের সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে শহীদ মিনার প্রতিষ্ঠার আন্দোলনে অংশ নেন।

রাজপথ থেকে শেখ হাসিনা সংসার জীবনে প্রবেশ করেন। বিয়ের সময় পিতা ছিলেন রাজবন্দী। ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট জাতির পিতা সপরিবারে নৃশংস হত্যাকান্ডের শিকার হন।

সৌভাগ্যক্রমে শেখ হাসিনা ছোট বোন শেখ রেহানাকে নিয়ে বিদেশে স্বামীর কর্মস্থলে থাকায় প্রাণে বেঁচে যান। ৬ বছর নির্বাসনে থেকে ১৯৮১ সালের ১৭ মে দেশে ফেরেন তিনি।

তার আগে নির্বাসনে থাকা অবস্থায় তিনি বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সভাপতি নির্বাচিত হন। সেই থেকে ১৯৯০ পর্যন্ত দীর্ঘ নয় বছর রাজপথে নেতৃত্ব দিয়ে গেছেন সামরিক স্বৈরাচার এরশাদ বিরোধী আন্দোলনে। দেশকে গণতন্ত্রের ধারায় ফিরিয়ে আনতে অগ্রণী ভূমিকা পালন করেন শেখ হাসিনা।

তাঁর স্বদেশ প্রত্যাবর্তনের সঙ্গে সঙ্গে বাংলাদেশে গণতন্ত্র ফিরে আসার পথ সুগম হয়। ১৯৮৬ সালে প্রথমবারের মতো শেখ হাসিনা জাতীয় সংসদে বিরোধী দলের নেতা নির্বাচিত হন। এরপর তিনি ১৯৯১ ও ২০০১ সালের জাতীয় সংসদেও বিরোধী দলের নেতার পদ অলঙ্কৃত করেন।

দেশে গণতন্ত্র পুনঃপ্রতিষ্ঠার দীর্ঘ সংগ্রামে শেখ হাসিনার পথ কুসুমাস্তীর্ণ ছিল না। এই দীর্ঘ পথ পরিক্রমায় তিনি বারবার জেলে গেছেন, গৃহবন্দী হয়েছেন এমনকি বারবার মৃত্যুর মুখোমুখি হয়েছেন। এ পর্যন্ত তিনি ১৯ বার মৃত্যুর কাছাকাছি থেকে ফিরে এসেছেন।

এর মধ্যে ২০০৪ সালের ২১ আগস্টের গ্রেনেড হামলা ছিল সবচেয়ে ভয়াবহ। ওই হামলায় তিনি প্রাণে বেঁচে গেলেও বয়ে বেড়াচ্ছেন কানে শ্রবণজনিত সমস্যায়।

১৯৯৬ সালের ১২ জুনের জাতীয় নির্বাচনে জয়লাভ করে দীর্ঘ ২১ বছর পর ক্ষমতায় আসে আওয়ামী লীগ। শেখ হাসিনা প্রথম বারের মতো বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী নির্বাচিত হন। রাষ্ট্রীয় ক্ষমতায় এসেই তিনি দেশের কতগুলো মৌলিক সমস্যা সমাধানে মনোযোগ দেন যা দীর্ঘ সময় ধরে রাজনৈতিক হাতিয়ার হিসেবে ব্যবহৃত হচ্ছিল।

তিনি পার্বত্য চট্টগ্রাম শান্তি চুক্তি এবং গঙ্গার পানি চুক্তি করে দেশের দীর্ঘ দিনের সমস্যার সমাধান করেন। সে সময় তিনি বঙ্গবন্ধু সেতু নির্মাণ করেন।

সেই সরকারের আরও উল্লেখযোগ্য সাফল্যের মধ্যে ছিল : দেশে খাদ্য নিরাপত্তা নিশ্চিত করা, ২১ ফেব্রুয়ারিকে জাতিসংঘের আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস ঘোষণা, বিশ্বকাপ ক্রিকেটে বাংলাদেশের অন্তর্ভুক্তি প্রভৃতি।

আওয়ামী লীগের নেতৃত্বাধীন জোট জয়লাভ করার মাধ্যমে শুরু হয় রূপকল্প-২০২১-এর পথে শুভযাত্রা। তাঁর নেতৃত্বে জাতীয় প্রবৃদ্ধি বেড়ে ৮ শতাংশ পর্যন্ত পৌঁছেছে। বর্তমানে দেশের মানুষের মাথাপিছু আয় ২ হাজার ৬৪ মার্কিন ডলার।

দারিদ্র্যের হার কমে হয়েছে ২০ শতাংশ। এক কোটি বেকারের কর্মসংস্থান হয়েছে। সরকার ডিজিটাল বাংলাদেশের স্বপ্ন বাস্তবায়ন করছে।

নিজ উদ্যোগে এবং অর্থায়নে পদ্মা সেতু নির্মাণ সমাপ্তির পথে। ঢাকায় মেট্রোরেল প্রকল্প, দেশের প্রথম পরমাণু বিদ্যুৎ প্রকল্পসহ বেশ কিছু মেগা প্রকল্পের কাজ এগিয়ে চলছে।

এ ছাড়া একটি বাড়ি একটি খামার প্রকল্প, ডিজিটাল বাংলাদেশ, নারীর ক্ষমতায়ন, কমিউনিটি ক্লিনিক ও শিশু বিকাশ, সবার জন্য বিদ্যুৎ, আশ্রয়ণ প্রকল্প, সামাজিক নিরাপত্তা কর্মসূচি, শিক্ষা সহায়ক কার্যক্রম, বিনিয়োগ বিকাশ এবং পরিবেশ সুরক্ষা, যোগাযোগ নেটওয়ার্ক গড়ে তুলতে নানামুখী পদক্ষেপ ও কর্মপরিকল্পনা শেখ হাসিনার অনন্য নেতৃত্বের পরিচয় বহন করে।

শেখ হাসিনার গতিশীল নেতৃত্ব ও দেশ পরিচালনার নীতি পরিবর্তন করেছে প্রায় দুই কোটি মানুষের জীবনযাত্রা। জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদে দারিদ্র্য বিমোচনে তাঁর প্রণীত ছয় দফা গৃহীত হয়েছে। সারাবিশ্বে বিভিন্ন রাষ্ট্র ও সংস্থা শেখ হাসিনা প্রণীত দারিদ্র্য বিমোচন নীতি অনুসরণ করে যাচ্ছে।

চলতি বছরের শুরুতে বাংলাদেশসহ সারাবিশ্বে করোনা মহামারী সংক্রমণে যখন নানা অনিশ্চয়তা তৈরি হয় তখন তা মোকাবিলায় শেখ হাসিনা ত্বরিত বাস্তবমুখী পদক্ষেপ নিয়েছেন।

দেশের অর্থনীতি চাঙ্গা রাখা এবং জীবন ও জীবিকা রক্ষায় তিনি ১ লাখ ১২ হাজার ৬৩৩ কোটি টাকার ২১টি প্রণোদনা প্যাকেজ ঘোষণা করেন।

পাশপাশি নিম্ন আয়ের মানুষের জন্য সারা দেশে ব্যাপকভাবে ত্রাণ কার্যক্রম পরিচালনা করেন। করোনার সঙ্গে ঘূর্ণিঝড় আম্ফানের আঘাতও তিনি দক্ষতার সঙ্গে সামাল দেন।

কর্মগুণেই শেখ হাসিনা আজ বিশ্বনেতা। তিনি বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী, আওয়ামী লীগের সভানেত্রী পরিচয়ের বাইরেও একজন অভিভাবক।

অবসরে তিনি বই পড়েন, লেখালেখি করেন। ফুল, পাখি, প্রকৃতি ভালোবাসেন। কৃষি খামার, বাগান করায় উৎসাহ দেন। প্রধানমন্ত্রী হয়েও নিজের হাতে রান্নাবান্না করেন।