নওগাঁয় একঘন্টারও কম সময়ে চুরি যাওয়া টাকা উদ্ধার, চোরচক্রের ৫ সদস্য গ্রেফতার

Md Rahmatullah Ashike

আসন্ন ঈদুল ফিতরকে টার্গেট করে সাধারণ জনগণের কাছ থেকে কৌশলে টাকা হাতিয়ে নেয়া সংঘবদ্ধ চোরচক্রের ৫ সদস্য গ্রেফতার।

একঘন্টারও কম সময়ে চুরি যাওয়া টাকা উদ্ধার করেছে নওগাঁ সদর থানা পুলিশ।

ঘটনা ও পুলিশ সূত্রে জানা গেছে,কল্যানী ফিড মিলের ম্যানেজার শ্রী পুলক কুমার কুন্ডু (৩৮)

গতকাল ৫ মে,২০২১ তারিখ বেলা অনুমান ১২ টা নাগাদ সময় এক্সিম ব্যাংক, নওগাঁ শাখা হইতে নগদ পঞ্চাশ হাজার টাকার চারটি বান্ডিল সর্বমোট দুই লক্ষ টাকা উত্তোলন করে তার পরিহিত প্যান্টের দুই পকেটে রাখেন এবং অত্র থানাধীন পূবালী ব্যাংকে উক্ত টাকা জমা রাখার উদ্দেশ্যে রওনা হন। তিনি দুপুর অনুমান সাড়১২ টায় নওগাঁ সদর মডেল থানাধীন বাটার মোড়ে ডক্টরস্ ফুডস্ নামক দোকানের সামনে পৌঁছালে গ্রেফতারকৃত আসামী ১ মোঃ সেলিম (২৪), পিতা-মৃত আলম, ২ মোঃ আরিফ (২৫), পিতা-মোঃ মুকুল, ৩ মোছাঃ ঋতু (৪৫), পিতা-মৃত আব্দুল লতিফ, স্বামী-মৃত লুৎফর, ৪ মোছাঃ সেলিনা (৩৮), পিতা-হানিফ, স্বামী-সাইদুল ইসলাম, ৫ মোছাঃ আয়শা (৩২), পিতা-রফিক ব্যাপারী, স্বামী-লালন ব্যাপারী, সর্ব সাং-উত্তর চেলোপাড়া, থানা ও জেলা-বগুড়াসহ আরো অজ্ঞাতনামা ২/৩ জন তার চারপাশে ভিড় তৈরি করে তাকে ভিড়ের মধ্যে ধাক্কা দিয়ে তার প্যান্টের ডান পকেট হতে কৌশলে পঞ্চাশ হাজার টাকার একটি বান্ডিল চুরি করে নেয়।

উক্ত ঘটনায় বাদী পুলক কুমারের অভিযোগের প্রেক্ষিতে অত্র থানায় মামলা নং-০৬, তারিখ-০৫ মে,২০২১খ্রি. ধারা-৩৭৯/৪১১ পেনাল কোড রুজু হয়। ঘটনার মাত্র ০১ ঘন্টার মধ্যেই নওগাঁর জেলার সুযোগ্য পুলিশ সুপার প্রকৌশলী আবদুল মান্নান মিয়া বিপিএম স্যারের নির্দেশনায় অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (প্রশাসন) জনাব মোঃ রকিবুল আক্তার (সদ্য পুলিশ সুপার পদে পদোন্নতি প্রাপ্ত), জনাব আবু সাঈদ, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার, সদর সার্কেল, নওগাঁ, জনাব মোঃ নজরুল ইসলাম জুয়েল, অফিসার ইনচার্জ, নওগাঁ সদর মডেল থানা, পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) মুঃ ফয়সাল বিন আহসান, এসআই (নিঃ) মোঃ তৌহিদুল ইসলাম ও অন্যান্য অফিসার ও ফোর্সের সহায়তায় বিভিন্ন স্থানে বিশেষ অভিযান পরিচালনা করে বর্ণিত আসামীদেরকে গ্রেফতার করা হয় এবং চুরি যাওয়া পঞ্চাশ হাজার টাকা উদ্ধার করা হয়।

পুলিশ এর নিকট তথ্য ছিল উপরোক্ত সংঘবদ্ধ চোরচক্র আসন্ন ঈদুল ফিতরকে কেন্দ্র করে নওগাঁ জেলা সহ আশে-পাশের বিভিন্ন এলাকায় কৌশলে চুরি করত। গ্রেফতার এড়াতে তারা বেশ কয়েকটি গ্রুপে ভাগ হয়ে বিভিন্ন মার্কেটের ভীড়ের মধ্যে চুরি করে এবং একটি এলাকায় কয়েক দিনের জন্য অবস্থান করে বলে জানা যায়। তাদের প্রত্যেকের বিরুদ্ধে দেশের বিভিন্ন থানায় একাধিক মামলা আছে। এ ধরনের সংঘবদ্ধ চোর চক্রের ব্যাপারে সচেতন থাকতে এবং করোনা কালীন সময়ে বিনা প্রয়োজনে বাজারে ভিড় না করতে নওগাঁ জেলাবাসীকে নওগাঁ জেলা পুলিশের পক্ষ থেকে অনুরোধ করা হয়।
রহমতউল্লাহ,নওগাঁ প্রতিনিধি