নওগাঁর বদলগাছীতে ফসলি জমিতে পুকুর খননের হিরিক,নিরব প্রশাশন - Metronews24 নওগাঁর বদলগাছীতে ফসলি জমিতে পুকুর খননের হিরিক,নিরব প্রশাশন - Metronews24

নওগাঁর বদলগাছীতে ফসলি জমিতে পুকুর খননের হিরিক,নিরব প্রশাশন

Md Rahmatullah Ashike

নওগাঁর বদলগাছীতে তিন ফসলি জমিতে পুকুর খননের হিরিক পড়েছে। ফসলি জমিতে পুকুর খনন করা এসব মাটি যাচ্ছে ইটভাটায়। অজ্ঞাত কারণে নিরব ভূমিকায় প্রশাসন। বারবার জানিয়েও কোনো ব্যবস্থা গ্রহণ করেননি উপজেলা সহকারি কমিশনার(ভূমি) সুমন জিহাদী ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আলপনা ইয়াসমিন।

সরেজমিনে উপজেলার বিভিন্ন এলাকা ঘুরে দেখা যায়, এ উপজেলায় এ বছর প্রায় ২০ টিরও বেশি পুকুরের মাটি ইটভাটায় বিক্রি হয়েছে। এতে করে বর্ষায় রাস্তা ঘাট পুকুরের সাথে বিলিন হওয়ার আসংকা দেখা দিচ্ছে তাছাড়াও অনেক জায়গায় দুই ও তিন ফসলি জমিতে নতুন পুকুর খনন করে সেসবের মাটিও বিক্রি করা হচ্ছে ইটভাটায়। উপজেলার মিঠাপুর ইউপির কসবা গ্রামের লালচান তার ফসলি জমির মাটি বিক্রি করছিল স্থানীয় আইয়ুব সরকারের ও মিঠাপুর ইউপি চেয়ারম্যান ফিরোজ হোসেনের ইটভাটায়। ঘটনাস্থলে দাঁড়িয়ে ৮ জুন তিনটার দিকে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাকে ফোন করলেও তিনি কোনো ব্যবস্থা গ্রহণ করেননি।

এর আগে জালালপুর গ্রামের ফয়েজ উদ্দিন মাস্টারের খননকৃত পুকুরের মাটি, কেশাইল গ্রামের কাজল ডাক্তারের খননকৃত পুকুরের মাটি, বালুপাড়া গ্রামের গণেশ ডাক্তারের পুকুরসহ বেশ কয়েকটি পুকুর খনন করে ই্টভাটায় মাটি বিক্রির তথ্য উপজেলা প্রশাসনকে জানিয়েও কোনো ফল হয়নি। ফলে এ উপজেলার মানুষ মাটি কাটতে ব্যাপক উৎসাহিত হচ্ছে।

আরও পড়ুনঃ নওগাঁ বদলগাছীতে নিখোঁজ এর ৪ দিন পর পাট ক্ষেত থেকে লাশ উদ্ধার

ফসলি জমির মাটি কাটার বিষয়ে জানতে চাইলে উপজেলা সহকারি কমিশনার(ভূমি) সুমন জিহাদী বলেন, ঘটনাস্থলে গেলে তারা বলে যেসব সাংবাদিককে ম্যানেজ করা যায় না তারা অফিসে ফোন দিয়ে অভিযোগ করে। যাহোক আমরা দ্রুত মাটি কাটা বন্ধ করার ব্যবস্থা করছি।

এবিষয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আলপনা ইয়াসমিন বলেন, বিষয়টি আমি দেখছি।

নওগাঁ প্রতিনিধি

Share