ধর্ষণ শেষে আজান দিয়ে নামাজ পড়ালেন!

Moazzin hanged the body after the rape

ময়মনসিংহের গফরগাঁওয়ে তাকমিনা (২০) নামে এক যুবতীকে ধর্ষণের পর হত্যার ঘটনায় একজনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। নিহত তাকমিনা পাড়াভরট গ্রামের আব্দুল মতিনের মেয়ে।

পরিবার সুত্রে জানা যায়, নিহত তাকমিনার সাথে প্রেমের সম্পর্ক ছিল মো. আশিকুল নামে এক মুয়াজ্জিনের সাথে।

আশিকুল স্থানীয় আঠারদানা জামে মসজিদের মোয়াজ্জিন ও পাড়াভরট গ্রামের জামিয়া আরাবিয়া কাসেমুল উলুম কওমী মাদ্রাসার কিতাব বিভাগের ছাত্র।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে পুলিশের একজন কর্মকর্তা বলেন, আশিকুল সোমবার (২৩ মার্চ) দিবাগত রাত তিনটার দিকে তাকমিনাকে মোবাইল ফোন করে পালিয়ে যাওয়ার কথা বলে বাড়ি থেকে কিছুটা দুরে নিয়ে আসে।

কৌশলে সেখানে তাকমিনাকে ধর্ষণ করে আশিকুল। পরে সেখানে আগে থেকেই ওত পেতে ছিল তার দুই। তার দুই বন্ধু আশিকুল তিন জন মিলে তাকমিনার হাত পা মুখ বেধে ফেলে।

হাত পা বাধার পর আশিকুল তার মাথার পাগড়ী দিয়ে গলায় ফাঁস দিয়ে খুন করে। পরে টেনে হিচড়ে তাকমিনার লাশ একটি জাম গাছের সাথে ঝুলিয়ে রাখে।

এর কিছুক্ষণ পর ফজরের আজান দেয়ার সময় হলে আশিকুল মসজিদে গিয়ে ফজরের আজান দেয়। ওই দিন মসজিদের ইমাম না আসার কারনে ফজরের নামাজে ইমামতি করেন আশিকুল। এ সময় তার দুই বন্ধুও তার পিছনে নামাজ পড়েন।

নামাজ শেষে মুসল্লিরা মসজিদ থেকে বের হওয়ার পর তাকমিনার লাশ একটি জামগাছের ডালে ঝুলন্ত অবস্থায় দেখতে পায়। তাকমিনার লাশ গাছে ঝুলানো থাকলেও পা মাটিতে লেগে ছিল। পাশেই পড়েছিল তাকমিনার মোবাইল।

আরও পড়ুনঃ দুলাভাইকে বেঁধে গৃহবধূকে পালাক্রমে ধর্ষণ

মুসল্লিরা লাশটি দেখতে পেয়ে স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান তারিকুল ইসলাম রিয়েলকে জানায়। পরে রিয়েল গফরগাঁও থানায় খবর দিলে পুলিশ গিয়ে লাশ উদ্ধার।

আঠারদানা জামে মসজিদের মুসল্লী ও পাড়াভরট গ্রামের খাহে আলী মন্ডল বলেন, মঙ্গলবার (২৪ মার্চ) ভোররাতে ফজরের নামাজের আজান দেয় মুয়াজ্জিন আশিকুল।

ওই দিন ইমান সাহেব না থাকায় ফজরের নামাজের ইমামতিও করেন আশিকুল। এর পর থেকে মসজিদে গিয়ে মুয়াজ্জিন আশিকুলকে আর দেখা যায়নি।

তাকমিনার ছোট বোন সুমাইয়া বলেন, তাকমিনা রাতে তার সঙ্গেই ঘুমিয়েছিল। সে কখন উঠে চলে যায় আমি টের পাইনি। তবে, তাকমিনা গোপনে মোবাইল ব্যবহার করতো। সেই মোবাইল ফোনটি হয়তো আশিকুলের দেয়া হতে পারে বলেও জানান তিনি।

গফরগাঁও সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আলী হায়দার চৌধুরীর সাথে ফোনে কথা হলে তিনি বলেন, এ হত্যাকান্ডের রহস্য উদঘাটন করতে আমরা তথ্য প্রযুক্তি ব্যবহার করেছি ।

তবে বাকী জড়িতদের গ্রেফতারের স্বার্থে এখন কিছু বলা যাবে না। পরে ব্রিফিং করে সাংবাদিকদের বিস্তারিত বলা হবে বলেও জানান তিনি।

এর মঙ্গলবার (২৪ মার্চ) দুপুরে উপজেলার পাড়াভরট গ্রামের একটি গাছ থেকে ঝুলন্ত অবস্থায় তাকমিনার লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। পরে ওই দিন বিকালে তাকমিনার বাবা আব্দুল মতিন বাদী হয়ে অজ্ঞাত নামা আসামী করে গফরগাঁও থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন।

0 Shares
  • 0 Facebook
  • Twitter
  • LinkedIn
  • Mix
  • Email
  • Print
  • Copy Link
  • More Networks
Copy link
Powered by Social Snap