দারিদ্র্যের কষাঘাতে মৃত্যু যেন না হয় - Metronews24 দারিদ্র্যের কষাঘাতে মৃত্যু যেন না হয় - Metronews24

দারিদ্র্যের কষাঘাতে মৃত্যু যেন না হয়

Feature JnU Reporter

কান্নাভেজা চোখে বসেছিল তখন সবাই। হ্যাঁ করোনা আছে। তাই বলে পেটের ক্ষুদা যে লক ডাউন মেনে চলতে পারেনা।

রাজধানী ঢাকা শহরের কামরাঙ্গীর চর এলাকায় সবচেয়ে কঠোর পরিশ্রম যারা করে তাদের মধ্যে রিকশাওয়ালাদের কথা না বললেই নয়। কেউ কেউ তো আবার সারাদিন রিক্সা চালানোর পরে রাতে যোগ দেয় ভিন্ন কিছু শ্রমজীবীদের সাথে।

গ্রামে বড় পরিবারের ঘানি টানতে টানতে হাড়-পাঁজর এক করা পরিশ্রম তাদের। সপ্তাহ জুড়ে লকডাউনে সরকারি চাকরিজীবীদের বেতন যেমন থেমে থাকেনি, প্রয়োজন অপ্রয়োজনে অনেকেরই বাইরে যাওয়া ও থেমে থাকেনি।

কিন্তু আর যাই হোক তিন বেলা খাবারের নিশ্চয়তা তো ছিল। যখন পেটের দায়ে করোনা মহামারীর এত বাজে অবস্থা কে তুচ্ছ করেই ঘর থেকে বের হতে হলো অমান্য করতে হলে সরকারি নিষেধাজ্ঞা তখন তা অবশ্যই ছোট কোনো বিষয় নয়।
ঘরে স্ত্রী সন্তান যখন ক্ষুধায় কাতর তখন কাজ না করে কি করে বসে থাকা যায় ঘরে? এমন আরও অনেক অভিব্যক্তি নিয়েই রোজের টাকা আনতে বের হতে হয় ঘর থেকে। পুলিশি তৎপরতা এবং জরিমানার ভয় তো আছেই।

কিন্তু পেট তো তা মানে না।
অন্তত তিন, চারটে ক্ষেপ চাই। একশ টাকা রিকাশার জমা,একশ টাকা থাকার খরচ আর একশ টাকা কিছু খাবারের জন্য হলেও।
পড়াশোনা না থাকায় বাচ্চা কাচ্চাদের মাস শেষে পাঁচশ টাকার চিন্তা টা না হয় নাই বা করলাম। সামনে ঈদ বাড়িতে বাবা-মায়ের জন্য কিছুতো পাঠাতে হবে। গত বছরে না বাড়িতেই ছিলাম সবাই দেখেছে কাজ নাই, টাকা নাই, তবু ঈদ চলে গেসে।কিন্তু এবার আশায় আছে সবাই।
একথা ভাবতেই কান্না করছিলেন তারা।অপেক্ষা ছিলো সার্জন যদি একটু মায়া করে রিকশাটা ছেড়ে দেয় অন্তত আজকের খাবারের টাকা টা জোগাড় করার সুযোগ হতো।
জরিমানা দেওয়ার পয়সা তো নেই।সে কথা বলে লাভও নেই।লাঠির বারি চারটা দিলেও চলবে।কিন্তু খাবার ছাড়া যে ঘরে যাওয়া যাবে না।
চোখের সামনেই রিকশাটা উল্টো করে রেখে বসে আছেন তারা।হ্যাঁ সব রিকশাই যে ধরছে এমন না।যারা বসে আছে তারা কপাল চাপড়ে ভাবছে কি দেখে ঘর থেকে বের হয়েছি আজ।
অপেক্ষার প্রহর যেন দীর্ঘ হয়।বেলা ৯ টা থেকে আটকে আছে।সময় যেন পার হচ্ছে না কোনোভাবেই। সেহেরীতে পান্তা ভাতের আয়োজন হলেও চলবে।রোজার মাস সারাদিন না খেয়ে চালিয়ে দিলেও সন্ধ্যায় ইফতার আয়োজন করতে না পারলে বাচ্চা গুলোর চোখের দিকে তাকানো যায় না।
গত বছরের লুঙ্গিগুলো এ বছর পরা যাছে না।নতুন শাড়ী দিতে না পারলেও অন্তত একটা বোরখা কিনে যে দিতেই হবে।বাচ্চার জন্য একটা নতুন জামা আর নামাজ পড়ার জন্য একটু আয়োজন।
এরকম হাজারো স্বপ্ন আর ভাবনাগুলো যেন চোখের সামনে মাটি চাপা দিয়ে দাড়িয়ে থাকা ছাড়া উপায় নাই।তবে কি দরিদ্রর ঘরে জন্ম নেওয়া পাপের ফল এটা?
এ লক ডাউন যদি ঈদ অবধি চলে কেমন করে কি হবে?এসব ভাবনা বাদ দিয়েই বার বার সার্জন এর কাছে গিয়ে চলছে আকুতি মিনতি।
অবশেষে বেলা ১২ টার ঠিক কিছু আগে যখন ছাড়া হলো যেন কান্না চোখের একটুখানি স্বস্তি এলো।সৃষ্টিকর্তার কাছে শুকরিয়া আদায় করে একটুখানি পেটের চাহিদা মেটাবার চেষ্টা করার জন্য আমার নামলো রাস্তায়।
ত্রাণের অপেক্ষায় যদিও মনে কিছুটা ভরসা আসে,তবে পাওয়া না পাওয়ার শঙ্কাও জাগে মনে।সে যাই হোক, যদি সম্ভবপর হয়ে তাদের প্রতি কিছুটা দৃষ্টিপাতকরার সুযোগ হয়,তবে দারিদ্র্যের কষাঘাতে যেন অকাল প্রাণ না দেয় তারা সে বিষয়ে সদয় হবেন আপনিও।
অমৃত রায়, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়

Share