তবুও রানী মন্ডল ৮ বছর ধরে পাচ্ছেন বিধবা ভাতা!

Goshrabloodbank dumuriakhulna

খুলনা জেলার ডুমুরিয়া উপজেলার চুকনগরে স্বামী জীবিত থাকতেও দীর্ঘ ৮ বছর ধরে এক নারী বিধবা ভাতা পাচ্ছেন বলে খবর পাওয়া গেছে। স্বামী বেঁচে থাকতেও বিধবা ভাতা তোলার এ রকম চাঞ্চল্যকর তথ্য এলাকায় ছড়িয়ে পড়লে সমালোচনা শুরু হয়েছে।

জানা যায়, খুলনা জেলার, ডুমুরিয়া উপজেলার আটলিয়া ইউনিয়নের ৯নং কুলবাড়িয়া ওয়ার্ডের মঠবাড়িয়া গ্রামের তৃষার কান্তি মণ্ডলের স্ত্রী গীতা রানী মণ্ডল ২০১৩ সাল থেকে বিধবা ভাতা উত্তোলন করে আসছেন।

বইতে স্বামীকে মৃত লেখা হলেও আজও তিনি জীবিত আছেন। যে বই দেখিয়ে তিনি ভাতা উত্তোলন করেন তা নং ৯৯২। বইতে আরও লেখা আছে, মৃত ইসলাম উদ্দীন শেখের স্ত্রী রাশিদা বেগমের পরিবর্তে ওই নারীকে ভাতা দেয়া হচ্ছে।

বিষয়টি নিয়ে সাবেক চেয়ারম্যান ও মেম্বারদের সাথে এই প্রতিনিধির কথা হলে এটা কিভাবে সম্ভব হলো তা তারা জানেন না বলে দাবি করেন। এ ব্যাপারে গীতা রানী মণ্ডল বলেন, অভাবের কারণে তখন আমরা আবেদন করেছিলাম। আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে আমাকে ভাতা দেয়া হয়।

২০১৩ সালে আটলিয়া ইউপি চেয়ারম্যান ছিলেন শেখ মো. বদরুজ্জামান তসলিম, আব্দুল হালিম মুন্না ও হাসিনা বেগম যথাক্রমে ইউপি সদস্য ও সংরক্ষিত মহিলা ইউপি সদস্য ছিলেন।

এ ব্যাপারে ৯নং কুলবাড়িয়া ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য আব্দুল হালিম মুন্না কিছু জানেন না বলে জানান। সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান শেখ মো. বদরুজ্জামান তসলিম বলেন, সে সময় আমি চেয়ারম্যান ছিলাম ঠিকই, কিন্তু আমার মেয়ে মারা যাওয়ার কারণে মানসিকভাবে ভেঙে পড়েছিলাম।

এ সময় মেম্বাররা কীভাবে কী করেছে সেটা আমার মনে নেই। বর্তমান ইউপি চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট প্রতাপ কুমার রায় বলেন, বিষয়টি আমরা জানতে পেরেছি এবং আবেদনের মাধ্যমে বইটি বাতিলের ব্যবস্থা করছি।

এম,এম টিপু সুলতান,খুলনা প্রতিনিধি