টঙ্গীতে নিউ মন্নু ফাইন কটন মিলসের ২০তম বার্ষিক সাধারণ সভা

Tongi Olimpiya Tetaile mils

টঙ্গীর নিউ অলিম্পিয়া টেক্সটাইল মিল্স লি. এর ২০তম বার্ষিক সাধারণ সভা মিলের শেয়ার হোল্ডারদের সমন্বয়ে রবিবার দুপুরে মিল প্রাঙ্গনে অনুষ্ঠিত হয়েছে।

নিউ অলিম্পিয়া টেক্সটাইল মিল্স লি. এর পরিচালনা পরিষদের চেয়ারম্যান ও স্থানীয় ৫৫ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর মো. আবুল হাসেমের সভাপতিত্বে এবং পরিচালক হাসান মল্লিকের সঞ্চালনায় অনুষ্টিত সাধারণ সভায় গত অর্থবছরের আয়-ব্যায়ের হিসাব তুলে ধরেন মিলের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মতিউর রহমান বিকম। এ সময় অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন নিউ মন্নু ফাইন কটন মিলস্ধসঢ়; এর চেয়ারম্যান মো. হারুন অর রশিদ, ব্যবস্থাপনা পরিচালক মো. মিজানুর রহমানসহ মিলের পরিচালনা পরিষদের কর্মকর্তা এবং স্থানীয় আওয়ামীলী ও অঙ্গ সংগঠনের নেতৃবৃন্ধ। বক্তাদের মধ্যে নিউ মন্নু ফাইন কটন মিল্স এর চেয়ারম্যান মো. হারুন অর রশিদ বলেন, সারা দেশের ১১ মিল সরকার শ্রমিক মালিকানায় ছেড়ে দেন। যার মধ্যে টঙ্গীতে নিউ মন্নু, নিউ অলিম্পিয়া এবং নিউ মেঘনা টেক্সটাইল মিলস রয়েছে। এসব মিলগুলো শহীদ আহসান উল্লাহ মাষ্টার স্যারের প্রস্তাবনায় এবং প্রধানমন্ত্রীর ঐকান্তিক প্রচেষ্টায় আমাদের শ্রমিকদের হাতে দেয়া হয়েছে। কিন্তু বিটিএমসি কতিপয় কর্মকর্তা এবং আমলাদের কারণে আমরা মিলগুলো নিয়ে চরম শঙ্কায় রয়েছি। ২০০৪ সালের ৭ মে গাজীপুরের নয়নমনি শহীদ আহসান উল্লাহ মাষ্টার স্যারকে হত্যার মধ্যদিয়ে এসব মিলের শ্রমিক-কর্মচারীদের ভবিষ্যতকেও হত্যা করেছে। অপরদিকে একটি চক্র মিলগুলোকে ক্রু করে মিলগুলোর ঐতিহ্য ধ্বংশ করার চেষ্টা করেছিলো। সে সময় শহীদ আহসান উল্লাহ মাষ্টার এমপি এবং শ্রমিকদল নেতা মো. সালাউদ্দিন সরকারের জন্য ওই চক্রটি সফল হতে পারেনি। সালাউদ্দির সরকার আর আমাদের মধ্যে দল বা মত ভিন্ন থাকতে পারে, কিন্তু যার যতটুকু অর্জন তার ততটুকু মূল্যায়ন বা কৃতজ্ঞতা আমাদের প্রকাশ করতে হবে। টঙ্গীর এই তিনটি মিলের শ্রমজীবি মানুষ-শহীদ আহসান উল্লাহ মাষ্টার এমপি স্যার এবং ওনার সুযোগ্য সন্তান, আমাদের বর্তমান অভিভাবক যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী জাহিদ আহসান রাসেল এমপি এবং কেন্দ্রিয় শ্রমিকদল নেতা মো. সালাউদ্দিন সরকারকে আজীবন স্বরণে রাখবে একমাত্র তাদের সততা, প্রজ্ঞা, মানুষের প্রতি ভালোবাসা, কর্ম এবং গুনের কারণে। আমরাও তাদের কৃতজ্ঞচিত্তে মনে রাখতে চাই আজীবন। নিউ অলিম্পিয়া টেক্সটাইল মিল্ধসঢ়;স এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক মতিউর রহমান বিকম বলেন, আপনারা শহীদ আহসান উল্লাহ মাষ্টার এর প্রস্তাবনায় এবং প্রধানমন্ত্রীর মাধ্যমে মিল পেয়েছেন। তার সুযোগ্য সন্তান এবং যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী জাহিদ আহসান রাসেল এমপি’র মাধ্যমে একশ ভাগ নিশ্চিত মালিকানা পাবেন। এ আমাদের সকলের বিশ^াস। তবে সকলকে সর্বদা ঐক্যবদ্ধ থাকতে হবে। গাজীপুর মহানগর আওয়ামীলীগের দলীয় পদ এবং সিটি কর্পোরেশনের মেয়র পদ থেকে বহিস্কৃত জাহাঙ্গীর আলম প্রসঙ্গে শ্রমিক নেতা মতিউর রহমান বিকম বলেন, আপনারা জানেন, এসব মিল চালাতে হলে সিটি কর্পোরেশনের লাইসেন্স প্রয়োজন হয়। সিটি মেয়র জাহাঙ্গীর আলম-গত ৩ বছর বিশেষ করে নিউ মন্নু টেক্সটাইল, নিউ মেঘনা টেক্সটাইল এবং নিউ অলিম্পিয়া টেক্সটাইল মিলসসহ স্থানীয় কাউন্সিলর মো. নুরুল ইসলাম নুরুর ২টি ফ্যাক্টরী এবং বর্তমান ভারপ্রাপ্ত মেয়র মো.আসাদুর রহমান কিরণের ৩টি ফ্যাক্টরীর লাইসেন্স দেন নাই। কেনো দেন নাই জানেন, আমরা প্রতিমন্ত্রী জাহিদ আহসান রাসেল এর লোক, তাই। এতে আমাদের বিশাল ক্ষতি হয়েছে। ক্ষতি হয়েছে সাধারণ শ্রমিক এবং মিল মালিকদের। মহান আল্লাহ তা সহ্য করেন নাই। আল্লাহ তালা এর বিচার করেছেন। মনে রাখতে হবে, কারো প্রতি অন্যায় অবিচার করে- নিজে ভালো থাকা যায় না। আপনার মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী জাহিদ আহসান রাসেল এমপি’র জন্য দোঁয়া করবেন। ওনারা সুস্থ থাকলে আমরা আমাদের লক্ষ্যে অবশ্যই পৌঁছাতে পারবো। সভা শেষে শেয়ার সদস্যদের মধ্যে লভ্যাংশের অর্থ এবং দুপুরের খাবার বিতরণ করা হয়। এবারের সাধারণ সভায় সকল পরিচালক ও শেয়ার সদস্যদের সম্মতিক্রমে পূর্ববর্তী পরিচালনা পরিষদকে দায়িত্বভার অর্পণ করা হয়।মৃণাল চৌধুরী সৈকত, টঙ্গী

0 Shares
  • 0 Facebook
  • Twitter
  • LinkedIn
  • Mix
  • Email
  • Print
  • Copy Link
  • More Networks
Copy link
Powered by Social Snap