জবি শিক্ষার্থী আকবর হত্যার সুষ্ঠু তদন্ত ও বিচারের দাবিতে শিক্ষার্থীদের মানববন্ধন

Jagannath University news

ব্যবস্থাপনা বিভাগের চতুর্থ বর্ষের মেধাবী শিক্ষার্থী মো. আকবর হোসাইন খান রাব্বির রহস্যজনক মৃত্যুর দ্রুত সুষ্ঠু তদন্ত ও বিচারের দাবি জানিয়েছেন বিশ্ববিদ্যালয়টির সাধারণ শিক্ষার্থীরা।

মঙ্গলবার (৯ নভেম্বর) দুপুর ১২টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারের সামনে অনুষ্ঠিত মানববন্ধনে শিক্ষার্থীরা এ দাবি জানান। এ সময় বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর ড. মোস্তফা কামাল, ব্যবস্থাপনা বিভাগের চেয়ারম্যান মো. মহিউদ্দিন ও বিভাগের অন্যান্য শিক্ষকবৃন্দ বক্তব্য রাখেন।

মানববন্ধনে শিক্ষার্থীরা জানান, দীর্ঘ দু‍ই মাস পার হয়ে গেলেও অপরাধীরা এখনো ধরাছোঁয়ার বাইরে। পুলিশ এখনো সন্তোষজনক কোনো তথ্য সংগ্রহ করতে পারেনি। কে বা কারা গত ২৭ আগস্ট রাতে পরিকল্পনামাফিক আকবরকে ঢাকা হতে চট্টগ্রাম নিয়ে হত্যা করেছে, তা এখনো এক রহস্যের মধ্যে রয়ে গেছে। আকবরের মোবাইল ফোনটি ঘটনার এক-দুই দিনের মধ্যেই থানা থেকে লক খুলতে গিয়ে হার্ডড্রাইভ রিসেট দেয়া হয়, ফলে তার ফোন থেকে কিছু পাওয়া যায়নি।

পুলিশ এখনো সন্তোষজনক কোনো তথ্য সংগ্রহ করতে না পারায় ক্ষোভ প্রকাশ করেন শিক্ষার্থীরা। তারা বলেন, আমাদের সহপাঠীর সাথে খুব অন্যায় হয়েছে, তাকে পরিকল্পিতভাবে হত্যা করা হয়েছে। আমরা সাধারণ শিক্ষার্থীরা আমাদের একজন সহপাঠীর এমন রহস্যজনক মৃত্যুর সুষ্ঠু তদন্ত এবং দোষীদের দ্রুত আইনের আওতায় এনে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি করছি। দ্রুত সঠিক তদন্ত ও দোষীদের বিচারের আওতায় আনার দাবি জানান বক্তারা। তা না হলে কঠোর আন্দোলনের হু‍ঁশিয়ারিও দেন শিক্ষার্থীরা।

এ সময় ব্যবস্থাপনা বিভাগের চেয়ারম্যান মো. মহিউদ্দিন বলেন, আকবরের মৃত্যুতে আমরা একজন মেধাবী শিক্ষার্থীকে হারিয়েছি। অতিদ্রুত তার মৃত্যুর রহস্য যাতে উদ্ঘাটন হয় এবং দোষীরা যাতে শাস্তি পায় সে দাবি জানাচ্ছি। সেই সাথে তার সহপাঠীদের অনুরোধ করব তারা যেন আকবরের পরিবারের খোঁজখবর রাখে।

বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর ড. মোস্তফা কামাল বলেন, আকবরের হত্যা নিয়ে খুলশী থানার ওসি জানিয়েছে, এটা পিবিআই তদন্ত করেছে। পিবিআই থেকে এখন সিআইডির কাছে তদন্তভার দেয়া হয়েছে। তবে আকবরের পরিবার পক্ষ থেকে আবেদন দেয়া হয়েছে যেন পিবিআই তদন্ত করে। আমরা আশা করি আকবর হত্যার সুষ্ঠু তদন্ত হবে এবং আমরা বিচার পাব।

উল্লেখ্য, আকবর গত ২৭ আগস্ট সকালে ঢাকার সূত্রাপূরের একটি মেস থেকে শার্ট-প্যান্ট পরে ব্যাগে ল্যাপটপ-ফোন নিয়ে বের হয়ে যায়। এরপর রাত ৮টা ৫৩ মিনিটের দিকে অজ্ঞাত এক ব্যক্তি আকবরের বন্ধু ফয়সালকে ফোন করে জানায়, একটি ছেলে চট্টগ্রাম জিওএস মোড় ফ্লাইওভার থেকে নিচে পড়ে যায়, পরবর্তীতে পুলিশ এসে তাকে অজ্ঞান ও মাথার পেছনে রক্তাক্ত জখন অবস্থায় উদ্ধার করে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করে। পরে অবস্থার অবনতি হলে আইসিইউতে স্থানান্তর করা হয় এবং ১ সেপ্টেম্বর ভোরে চিকিৎসাধীন অবস্থায় চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে তার মৃত্যু হয়।

0 Shares
  • 0 Facebook
  • Twitter
  • LinkedIn
  • Mix
  • Email
  • Print
  • Copy Link
  • More Networks
Copy link
Powered by Social Snap