গ্রাফোলজি: জানা-অজানা

graphology
পড়েই বুঝে ফেলল আপনার পার্সোনালিটি সম্পর্কে। কি চমকে গেলেন? সে  কিভাবে বুঝলোভাবছেন ,সে শার্লক হোমসগোছের কেউ?  নাহ্.. এর জন্য শার্লক হোমস হওয়ার প্রয়োজন নেই। হাতের লেখার মাধ্যমে একজন মানুষের ব্যক্তিত্ব সম্পর্কেঅনেকাংশে ধারণা করা যায়। 
হাতের লেখা নিয়ে গবেষণার এই ক্ষেত্রটি  গ্রাফোলজিগ্রাফোঅ্যানালাইসিস নামে পরিচিত। এরসাধ্যমে একজন মানুষের হাতের লেখা দিয়ে লেখকের ব্যক্তিত্ব এবং লেখার সময়ে  লেখকের মানসিক অবস্থা সম্পর্কে ধারণাকরা সম্ভব।গ্রাফোলজি লো বিশ্লেষণমূলক একটা বিষয় সেখানে দেখা হয় লেখার মূহুর্ত পর্যন্ত ব্যক্তির অবস্থাঃ কিভাবে চিন্তাকরেঅনুভব করে এবং আচরণ করে নিজ  অন্যের সাথে।
হাতের লেখা লেখকের  সত্যিকারের পরিচয় বা ব্যক্তিত্ব  ফুটে তুলে।আমরা যা লিখি তা আমাদের সচেতন মন থেকে হয় কিন্তু যেই পদ্ধতিতে বা যেইভাবে  লিখি সেটা আমাদের অচেতন মন এরবিষয় ফুটিয়ে তুলে। গ্রাফোলজির ব্যবহারঃ 

 নিজেকে বোঝা,একটি জীবন সঙ্গী নির্বাচন 

,শিশুর উন্নয়নবিকাশ,ব্যবসায়ি অংশীদার নির্বাচন করা,কর্মচারী নিয়োগ,ম্যানেজমেন্ট নির্বাচন,কর্পোরেট প্রশিক্ষণ,নথিপরীক্ষা এবং ফরেনসিক বিশ্লেষণ

সুরক্ষা যাচাই করা এবং সততা  নিষ্ঠার মূল্যায়ন।

ক্যারিয়ার গাইডেন্স,কিছু কিছু শারিরিক রোগ সম্পর্কেও বলা যায়। সারাবিশ্বে এই গ্রাফোলজির র্চা অনেক বেশী হলে  বাংলাদেশে তেমন পরিচিতি এবং চর্চা নেই এই গ্রাফোলজির  নেই কোনগ্রাফোলজিস্ট এবং গ্রাফোলজি প্রতিষ্ঠান। জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের মনোবিজ্ঞান বিভাগের  শিক্ষার্থী বাংলাদেশর প্রথমগ্রাফোলজিস্ট  মো:মিরাজ হোসেনের হাত ধরেই বাংলাদেশে  চালু হলো কোন গ্রাফোলজি প্রতিষ্ঠান  ‘Bangladesh Institute of Graphology’

এই বিষয়ে মো:মিরাজ বলেন –আধুনিক বিশ্বে হাতে লেখা পরিমাণ কমে যাচ্ছে কিন্তু হাতেরলেখা আমাদের চাপ  কমায় এবং শরীরের বিভিন্ন কেমিক্যাল এর পরিমাণ বাড়ায়। একজন মানুষ কিভাবে একটা সিগনেচ্যার দিবে সেটি কেউ শিখিয়েদেয় না কিন্তু এই সিগনেচ্যার হলো সেই ব্যক্তির ব্যাহিক  পরিচয়। আমাদের হাতের লেখার সাথে আমার শারিরীক  মানসিকস্বাস্থ্য এর অনেক গভীর  সম্পর্ আছে।

 আমি যখন ভারতে গ্রাফোলজি শিখি এবং সেখানে প্রশিক্ষক হিসেবে জয়েন্ট করি দেখতেপায় অনে বাবা মা তাদের সন্তানদের হেলথি রাইটিং এর প্রতি অনেক মনোযোগী কারণ এটার সাথে ব্যাক্তির ব্যক্তিত্বেরসম্পর্কিত যা মানুষকে সফলতার দিকে  নিয়ে যাই।

 গ্রাফোলজি হাতের লেখা সুন্দর করা সাথে সম্পর্কিত নয়এটি আমাদের মন আচরণ  নিয়ে কাজ করে। মাদের দেশের মানুষকে শারিরীক  মানসিকভাবে সুস্থ রাখার জন্য আমা এই প্রতিষ্ঠান শুরুকরা এবং দেশের জন্য গ্রাফোলজিস্ট তৈরি করা মূল উদ্দেশ্য।

জবি প্রতিনিধি :