কোলের সন্তান নিয়ে থানায় মামি,অভিযোগ কিশোর ভাগ্নে শিশুর বাবা

Police have arrested a teenage nephew

নোয়াখালীর বেগমগঞ্জে সৌদি প্রবাসী আপন মামার স্ত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগে কিশোর ভাগ্নেকে (নির্যাতিতা গৃহবধূর ননদের ছেলে) আটক করেছে পুলিশ।

মঙ্গলবার সকালে উপজেলার চৌমুহনী পৌরসভার ৮ নম্বর ওয়ার্ডের হাজীপুর এলাকা থেকে তাকে আটক করা হয়। পরে মঙ্গলবার দুপুর ১টার দিকে আটক আসামিকে বিচারিক আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

ধর্ষণের ১১ মাস পর এক মাসের কন্যা শিশুকে কোলে নিয়ে বেগমগঞ্জ থানায় এসে তিনি ধর্ষণের কথা জানান নির্যাতিতা। তার দাবি, শিশুটির বাবা তার বড় ননদের ছেলে। অভিযুক্ত কিশোরের নাম নাজমুল আলম সোহান (১৬)।

সে উপজেলার সোনাইমুড়ীর কাইয়া গ্রামের পাটোয়ারী বাড়ির প্রবাসী মো. মোরশেদ আলমের ছেলে এবং চৌমুহনী মদন মোহন উচ্চ বিদ্যালয়ের নবম শ্রেণির ছাত্র। তবে তারা দীর্ঘদিন থেকে চৌমুহনী পৌরসভার ৮ নম্বর ওয়ার্ডের হাজীপুর এলাকায় একটি ভাড়া বাসায় থাকেন।

পুলিশ ও ভুক্তভোগীর পরিবার সূত্রে জানা যায়, গৃহবধূ গত বছরের ৪ ডিসেম্বর ৮ নম্বর ওয়ার্ডের হাজীপুর এলাকায় বড় ননদের ভাড়া বাসায় বেড়াতে আসেন। ওই সময় ভাগ্নে সোহান তাকে বাসায় একা পেয়ে ধর্ষণ করে।

পরে তিনি অন্তঃসত্ত্বা হয়ে পড়েন। এ ঘটনার  ১১ মাস পরে মঙ্গলবার সকালে ভুক্তভোগী গৃহবধূ বেগমগঞ্জ থানায় অভিযুক্ত সোহানের বিরুদ্ধে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলা দায়ের করেন।

আর পড়ুনঃ পরীক্ষায় ভালো নম্বরের প্রতিশ্রুতিতে ১১ স্কুলছাত্রীকে ধর্ষণ

বিষয়টি নিশ্চিত করে বেগমগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) কামরুজ্জামান সিকদার জানান, ভুক্তভোগী গৃহবধূর মামলায় অভিযুক্ত আসামিকে আটক করে বিচারিক আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়েছে। এ ঘটনার তদন্ত চলছে।