কে এই ঢাবি ছাত্রীকে ধর্ষণকারী?

Dhaka University student raped in rape case

রাজধানীর কুর্মিটোলায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) শিক্ষার্থী ধর্ষণের ঘটনায় ধর্ষককে আটক করেছে র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব)।

মঙ্গলবার (৭ জানুয়ারি) রাতে গাজীপুর থেকে অভযুক্ত ধর্ষককে আটক করা হয়। বুধবার সকাল ৯টার দিকে এ তথ্য জানিয়েছেন র‌্যাবের গণমাধ্যম শাখার সিনিয়র সহকারী পরিচালক মিজানুর রহমান। দুপুরের পর কারওয়ান বাজারে র‌্যাবের মিডিয়া সেন্টারে বিস্তারিত জানানো হবে।

মিজানুর রহমান জানান, ওই শিক্ষার্থীদের দেয়া তথ্যের ভিত্তিতে এক ব্যক্তিকে আটকের পর তার ছবি ধর্ষণের শিকার ছাত্রীকে দেখানো হয়েছে। তিনি তাকে ধর্ষক বলে শনাক্ত করেছেন।

আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর দায়িত্বশীল সূত্র জানায়, ধর্ষক একজন সিএনজি চালক। তার বয়স আনুমানিক ৩০-৩৫ বছর। সন্দেহভাজন হিসেবে মঙ্গলবার দুপুরে তাকে গাজীপুরের টঙ্গী থেকে আটক করা হয়।

এরপর দিনভর জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়। এক পর্যায়ে তার বিষয়টি নিশ্চিত হয়ে ঢামেকে ছাত্রীর কাছে ছবি পাঠানো হয় ওই যুবকের। ওই ছাত্রী নিশ্চিত করার পর তাকে আটক দেখায় র‌্যাব।

তার বিষয়ে জানতে চাইলে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর দায়িত্বশীল সূত্র জানায়, ‘আটকের বিষয়ে আরও খোঁজ নেয়া হচ্ছে। সে আগেও এ ধরনের ঘটনায় জড়িত ছিল কি না, তা জানার চেষ্টা চলছে।’

আরও পড়ুনঃ ঢাবি ছাত্রীর ধর্ষককে গ্রেফতার,সংবাদ সম্মেলন ডেকেছে র‌্যাব

সূত্র আরও জানায়, ছাত্রীর দেয়া বর্ণনার সঙ্গে আটক ব্যক্তির দৈহিক মিল পাওয়া গেছে। ঘটনার সময় আটক ব্যক্তির অবস্থান ও তার দেয়া তথ্যে বেশ কিছু গরমিল পাওয়া যায়। তথ্য উপাত্তে ধর্ষণের সঙ্গে তার সংশ্লিষ্টতা নিশ্চিত হয়েই তাকে আটক করা হয়েছে।

এর আগে মঙ্গলবার রাত থেকে র‌্যাব কর্তৃক ধর্ষককে গ্রেফতারের গুঞ্জন থাকলেও রাতে র‌্যাব-১ এর অধিনায়ক জানিয়েছিলেন, এ ঘটনায় একজনকে চিহ্নিত করে তাকে নজরদারিতে রাখা হয়েছে।

এছাড়াও ধর্ষক ধর্ষণের পর ওই ছাত্রীর ব্যাগ, মোবাইল ফোন ও নগদ দুই হাজার টাকা নিয়ে পালিয়েছে বলে তার বাবা মামলায় অভিযোগ করেছিলেন। এগুলো উদ্ধার করা হয়েছে কি না এ বিষয়ে এখনও নিশ্চিত করেনি র‌্যাব।

রোববার (৫ জানুয়ারি) বিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্ষণিকা বাসে করে ওই ছাত্রী বান্ধবীর বাসায় যাচ্ছিলেন। সন্ধ্যা পৌনে ৭টার দিকে কুর্মিটোলা বাসস্টপেজে নামার পর তাকে অজ্ঞাত এক ব্যক্তি অনুসরণ করতে থাকে।

একপর্যায়ে তাকে ফুটপাত থেকে তুলে ঝোপে নিয়ে ধর্ষণ করে। রাত ১০টার দিকে জ্ঞান ফিরলে ওই শিক্ষার্থী রিকশায় করে বান্ধবীর বাসায় যান। সেখান থেকে বান্ধবীসহ অন্য সহপাঠীরা তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যান।

সোমবার (৬ জানুয়ারি) সকালে অজ্ঞাত ব্যক্তিকে আসামি করে ওই ছাত্রীর বাবা ক্যান্টনমেন্ট থানায় মামলা করেন। মামলাটি ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি) তদন্ত করছে।

 

0 Shares
  • 0 Facebook
  • Twitter
  • LinkedIn
  • Mix
  • Email
  • Print
  • Copy Link
  • More Networks
Copy link
Powered by Social Snap