কালিয়াকৈরে নৌকা তৈরির ধুম পড়েছে

salim rana

গাজীপুরের কালিয়াকৈরে যাতায়াত ব্যবস্থা এখনো ঐতিহ্য বহন করে চলেছে নৌযান। এক সময় নৌকা ছিল প্রধান যোগাযোগের অন্যতম বাহন। বর্তমানে শুধুমাত্র বর্ষাকালে নি¤œাঞ্চল বন্যাপ্রবণ এলাকায় মানুষের পারাপারের একমাত্র বাহন নৌকা । বছরে ১২ মাসের ৪ মাস নায়ে বাকি ৮ মাস পায়ে হেঁটে বা অন্যান্য যানবাহনে । উপজেলার নি¤œাঞ্চল বর্ষা মৌসুমে বন্যার পানিতে প্লাবিত হতে শুরু করেছে। বছরের বাকিটা সময় নৌকার প্রয়োজন না হলেও বর্ষা এলে নৌকার ব্যবহার বেড়ে যায় । প্রতি বছরের ন্যায় এবারো নৌকা তৈরি ও বিক্রয় ব্যস্ত সময় কাটাচ্ছে সূত্রধরেরা । বংশপরম্পরায় এই পেশার সাথে মিশে আছে আজো । জলাবদ্ধ নি¤œাঞ্চল এলাকার মাঠ-ঘাট এখনো তলিয়ে না গেলেও আসছে বর্ষায় বন্যা মোকাবেলায় নৌকা তৈরি ও মেরামতের কাজে ব্যস্ত হয়ে পড়েছে। বর্ষায় বন্যা প্রবণ এলাকা গুলোতে পানি বাড়ার সাথে সাথে গ্রামগঞ্জের লোকজনের গৃহস্থলীর কাজে এবং খেয়া পারাপারের ও গো খাদ্যের জন্য কুশা, ডিঙ্গি নৌকার কদর বেড়ে যায় কয়েকগুণ। গ্রামে গ্রামে শুরু হয়েছে নৌকা তৈরি ও মেরামতের কাজ। বর্ষার পানি আর একটু বেশি হলে কদর বাড়বে নৌকা ও নৌকা তৈরির কারিগরদের । বিগত দুই বছর বৈশ্বিক মহামারী করোনার থাকায় নৌকা তৈরি ও বিক্রয় ছিল না। এই বছর বর্ষার আগমনের পূবেই উজানের পানির ডলে বর্ষার শুরুতেই নিম্নাঞ্চল প্লাবিত হয়ে যায়। তাই উপজেলার সীমার পাড়া এলাকায় দিনরাত পরিশ্রম করে নৌকা তৈরি করে যাচ্ছে কারিগররা। আশা আনুপাতিক বিক্রি না হলে ও স্বল্প পরিসরে নৌকা বিক্রি হচ্ছে। উপজেলার চাঁপাই ইউনিয়নের সীমার পাড়া এলাকায় দীর্ঘদিন যাবৎ সূত্রধর পরিবার বসবাস করে আসছে। এরা বংশপরম্পরায় ভাবে কাঠের নৌকা তৈরি করে জীবিকা নির্বাহ করছে। এখানকার তৈরি নৌকা সুখ্যাতি রয়েছে দেশের বিভিন্ন নি¤œাঞ্চল জলাবদ্ধ নৌকা ব্যবহারীত এলাকাতে। কালিয়াকৈর উপজেলার নি¤œাঞ্চল জলাবদ্ধ এলাকায় এখানকার তৈরি ছোট নৌকা, ইঞ্জিন সংযোজিত নৌকা, জেলেদের মাছ ধরার বড় নৌকা , বাইচ খেলা নৌকা,কোশা, কোন্দা সহ বিভিন্ন পর্যটন কৃত্রিম হৃদে তাদের তৈরি বাহারি নকশার যুক্ত নৌকার সুনামর সাথে ব্যবহার হয়ে আসছে। বিগত দুই বছর করোনার কারণে তাদের ব্যবসা অনেক মন্দা ছিল। এবারে ক্ষতি পুষিয়ে নিতে চেষ্টা করলেও নৌকা তৈরীর কাঁচামাল ও বাজারের দ্রব্যমূল্য ঊর্ধ্বগতি থাকার কারণে নৌকা তৈরি করতে বেশি খরচ পড়ে যাচ্ছে। অন্যান্য বছরের তুলনায় এবার অনেক বাড়তি মূল্যে বিক্রি করতে হচ্ছে। অন্যদিকে উপজেলার নদী, বিল ও খালের ঘাট পার এলাকাগুলোতে অস্থায়ীভাবে গড়ে উঠেছে পুরাতন ছোট বড় নৌকা ও ইঞ্জিন যুক্ত নৌকা মেরামতের কাজ। কেউ নতুন নৌকা তৈরি অথবা কেউ বা মাছ ধরার কাজে ব্যবহৃত নৌকার রং ও আলকাতরা দিয়ে পানিতে ব্যবহার উপযোগী করে তুলছে। নৌকার মালিক ও কারিগর সূত্রে জানা গেছে, এ বছর উপজেলার শত শত নৌকা নির্মাণ হচ্ছে । সীমার পাড়া, বাঁশতলী, হাটুরিয়াচালা ,ফুলবাড়িয়া ,কৌচাকুরি, সিনাবহ ,সুরিচালা ,শ্রীফলতলী ,বলিয়াদী , উল্টোপাড়া গ্রামগুলোতে নৌকা ব্যবহার হচ্ছে যুগ যুগ ধরে । এসব গ্রামে প্রায় বাড়িতে বর্ষাকালে যাতায়াতের জন্য নৌকার ব্যবহার করে। একসময় বর্ষা মৌসুমে এ এলাকায় পালতোলা নৌকা চলা চল করতো।বিভিন্ন হাট- বাজারে মালামাল আনা নেয়ার জন্য বড় নৌকা ও ইঞ্জিনচালিত নৌকা ব্যবহার হতো। সীমার পাড় এলাকার সুব্রত সূত্রধর জানান ,ছোটবেলা থেকেই বাবার সাথে নৌকা তৈরির কাজ করছি। আগে বছরের সব সময় নৌকা তৈরী এবং বিক্রি হতো। এখন বর্ষা এলে নৌকা তৈরি কাজ বারে। প্রতিবছরের মতো এবারও বর্ষা মৌসুমে শুরু হওয়ার আগে থেকেই নৌকা তৈরি কাজ শুরু করেছি । এবছর করোনা প্রাদুর্ভাব কম থাকায় মৌসুম শুরুর আগ থেকেই অনেক অর্ডার পেয়েছি । কাঠ ও নৌকা তৈরির সামগ্রীর দাম বেশি হওয়াতে বেশি দামে বিক্রি করতে হবে। নৌকা তৈরি বিশেষ কোন কাঠ নির্দিষ্টভাবে ব্যবহার হয় না । আগে ভালো কাঠ দিয়ে নৌকা তৈরি করতাম। এখন কড়াই, হিজল ও মেহগনি দিয়ে বেশির ভাগ নৌকা তৈরি করি। ছাড়াও মাটিয়ার তেল, আলকাতরা, তারকাটা , গজল ইত্যাদি লাগে। প্রতিদিন ৪ জন লোক একটি ডিঙ্গি নৌকা তৈরি করতে পারি। একটু ছোট নৌকা তৈরি করতে ৫ হাজার টাকা খরচ হয় বিক্রি হয় সাত থেকে আট হাজার টাকায় । করোনার কারণে গত দুই বছর আমাদের অনেক কষ্টের মানবেতর দিন অতিবাহিত হয়েছে । নৌকা তৈরি বা বিক্রি ছিলনা আমাদের সিমার পাড়া নৌকা অনেক সুনাম রয়েছে। সরকারি সহযোগিতা পেলে আমাদের এই নৌকা তৈরি শিল্পকে আরো সুনামের সাথে ধরে রাখতে পারব আশা করি। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা তাজওয়ার আকরাম সাকাপি ইবনে সাজ্জাদ জানান, কাঠের নৌকা তৈরি শিল্প কর্মসংস্থানের ভালো উদ্যোগ। কারিগরদের টিকিয়ে রাখতে সরকারের বিভিন্ন দপ্তরে আলাদা আলাদা ভাবে প্রশিক্ষণ ও সহজ শর্তে ক্ষুদ্রঋণের ব্যবস্থা রয়েছে । আগ্রহীরা যদি আবেদন করেন তাহলে তাদেরকে পর্যায়ক্রমে সকল সুযোগ সুবিধা দেয়া হবে।
মোঃ সেলিম রানা, কালিয়াকৈর (গাজীপুর)প্রতিনিধি

0 Shares
  • 0 Facebook
  • Twitter
  • LinkedIn
  • Mix
  • Email
  • Print
  • Copy Link
  • More Networks
Copy link
Powered by Social Snap