এবার বদলে গেল নাম,যে নামে ডাকা হবে করোনাভাইরাসকে - Metronews24 এবার বদলে গেল নাম,যে নামে ডাকা হবে করোনাভাইরাসকে - Metronews24

এবার বদলে গেল নাম,যে নামে ডাকা হবে করোনাভাইরাসকে

Coronavirus Has a Name The Deadly Disease Is Covid-19

যুদ্ধের আতঙ্কও ছাড়িয়ে গেছে করোনাভাইরাসের হানায়। হু হু করে মৃতের সংখ্যা বাড়ছে চীনে। ইতিমধ্যেই করোনাভাইরাসে চীনে মৃতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে এক হাজার ১৩ জনে।

তবে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ার পর এখন পর্যন্ত তিন হাজার তিনশ ৪৪ জন সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন। প্রাণঘাতী এই করোনাভাইরাস কেবল চীন নয়, বিশ্বজুড়েই আতঙ্ক ছড়াচ্ছে।

করোনাভাইরাসের উৎপত্তিস্থল চীনের উহান শহরে। প্রাথমিক অবস্থায় নাম না দেওয়ায় চীনের বাসিন্দারা এ ভাইরাসকে উহানের নামে ডাকা শুরু করেন।

চীনের বাইরে একে চায়না ভাইরাস বলেও ডাকা শুরু হয়। বিষয়টি নিয়ে বিব্রতকর অবস্থার সৃষ্টি হয় উহান শহরবাসী ও চীনাদের জন্য।

সেই পরিপ্রেক্ষিতে চীনের জাতীয় স্বাস্থ্য কমিশন ভাইরাসটিকে ‘নভেল করোনাভাইরাস নিউমোনিয়া’ সংক্ষেপে এনসিপি নাম ডাকার ঘোষণা দেয়। তবে এ নামটি সাময়িক বলে জানায় তারা। একই সঙ্গে দ্রুত নতুন নাম দেওয়া হবে বলে উল্লেখ করে তারা।

এবার আনুষ্ঠানিক নাম পেল করোনাভাইরাস। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (WHO) জানিয়েছে, এখন থেকে প্রাণঘাতী এই ভাইরাসকে COVID-19 (কভিড-১৯) নামে ডাকা হবে।

গতকাল মঙ্গলবার (১১ ফেব্রুয়ারি) সংস্থাটির প্রধান তেদরোস আদহানম জানান, নতুন এ ভাইরাস এখন থেকে COVID-19 নামে পরিচিত হবে।

আরও পড়ুনঃ মার্কিন সামরিক ঘাঁটি চুরমার করে দিয়েছে ইরান

এ নামকরণের ব্যাখ্যায় তিনি বলেন, এটাই ভাইরাসটির আনুষ্ঠানিক নাম। ভাইরাসটির নামের CO দিয়ে করোনা, VI দিয়ে ভাইরাস, D দিয়ে ডিজিজ (রোগ) এবং 19 দিয়ে ভাইরাসটি উৎপত্তিসাল ২০১৯ নির্দেশ করা হয়েছে।

এদিকে, প্রাণঘাতী এই করোনাভাইরাস চীনের উহানে শনাক্তের পর হঠাৎ করেই অদৃশ্য হয়ে যান দেশটির প্রেসিডেন্ট শি জিনপিং। তাকে কোথাও যেন খুঁজে পাওয়া যাচ্ছিল না।

Coronavirus
Coronavirus

এর মধ্যে হঠাৎ করেই স্থানীয় এক হাসপাতালে স্বাস্থ্য পরীক্ষা করা অবস্থায় দেখা গেছে তাকে। এ সংক্রান্ত ছবি এখন সামাজিক মাধ্যমে আলোচিত হচ্ছে।

সূত্রের খবর, গত সোমবার বেইজিংয়ের চেংইয়ং জেলায় করোনা ভাইরাস আক্রান্ত রোগীদের চিকিৎসায় তৈরি বিশেষ হাসপাতালে যান জিনপিং।

ভাইরাস প্রতিরোধী মাস্ক ও শরীরে কালো রংয়ের জ্যাকেটে মোড়ানো জিনপিংকে এসময় এক স্বাস্থ্যকর্মী হ্যান্ডহেল্ড থার্মোমিটার দিয়ে পরীক্ষা করছেন। যার মাধ্যমে ফের সামনে এলেন চীনা প্রেসিডেন্ট।