এবার অভিনেত্রীকে চলন্ত বাসে ধর্ষণের চেষ্টা

This time the actress tried to rape the moving bus

এবার রাতে চলন্ত বাসে যাত্রীকে ধর্ষণের চেষ্টার অভিযোগ উঠলো চালক ও তার সহকারীর বিরুদ্ধে।

তবে ধস্তাধস্তিকালে ওই ছাত্রী লাথি দিয়ে জানালার কাচ ভেঙে ফেললে পথচারীদের কাছ থেকে খবর পেয়ে তাৎক্ষণিকভাবে পুলিশ মেয়েটিকে উদ্ধার করে।

এ সময় বাসচালকের দুই সহকারীকে আটক করা গেলেও চালক পালিয়ে যায়। গত শনিবার রাতে গাজীপুরের শ্রীপুর উপজেলার মাওনা ফ্লাইওভারে এ ঘটনা ঘটে।

জানা গেছে, বাসের ওই যাত্রী নবম শ্রেণির শিক্ষার্থী। বরিশালের মেহেন্দীগঞ্জ উপজেলায় বাড়ি হলেও রাজধানীর মিরপুরে এক আত্মীয়ের বাসায় থেকে পড়াশোনা করে। এর পাশাপাশি মডেলিং ও অভিনয় করে।

আটক হওয়া ব্যক্তিরা হলেন দিনাজপুরের ফুলবাড়ী উপজেলার আমড়া গ্রামের কবির হোসেনের ছেলে জুয়েল (২৮) ও নেত্রকোনার কেন্দুয়া উপজেলার চন্দনকান্দি গ্রামের আলতু মিয়ার ছেলে আশিক (২২)। তারা দুজনই চালকের সহকারী।

আরও পড়ুনঃ গৃহবধূকে ধর্ষণের দায়ে ৬০ বছরের বৃদ্ধ গ্রেফতার

আটক হওয়া দুজন পুলিশের প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে বাসচালকের নাম হারুন মিয়া ও তার বাবার নাম মৃত আবদুল কুদ্দুস বলে জানিয়েছে। তবে বাসচালকের ঠিকানা জানাতে পারেনি তারা।

মাওনা মহাসড়ক থানার ওসি মঞ্জুরুল হক এ ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন। তিনি বলেন, গাজীপুরের রাজেন্দ্রপুর এলাকায় নাটকের শুটিংয়ে অংশ নিতে মিরপুর থেকে রাত সাড়ে আটটার দিকে চান্দনা চৌরাস্তায় নামে সে। পরে সেখান থেকে সে ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কে চলাচলকারী চ্যাম্পিয়ন পরিবহনের যাত্রীবাহী একটি বাসে উঠে।

পুলিশ কর্মকর্তা আরও জানান, কিছুদূর যাওয়ার পর কৌশলে বাস থেকে অন্য যাত্রীদের নামিয়ে দেয়া হয়। তবে এ সময় চালক স্কুলছাত্রীকে আশ্বস্ত করে জানায়, তাদের সমস্যা থাকলেও তাকে গন্তব্যে পৌঁছে দেবে।

পরে বিভিন্ন এলাকা ঘুরে গন্তব্যে পৌঁছে না দিয়ে স্কুলছাত্রীকে নিয়ে শ্রীপুরের মাওনা উড়াল-পথে চলে আসে তারা। সেখানে উড়াল-পথের উপর বাসের ভেতর তারা স্কুলছাত্রীকে মুখ বেঁধে ধর্ষণচেষ্টা চালায়।

0 Shares
  • 0 Facebook
  • Twitter
  • LinkedIn
  • Mix
  • Email
  • Print
  • Copy Link
  • More Networks
Copy link
Powered by Social Snap