ইফতার কিনতে অমান্য স্বাস্থ্যবিধি বাহানার নানা ধরণ

News editorial

লকডাউন উপলক্ষে সীমিত পরিসরে দোকানপাঠ খোলার অনুমতি দেয়া থাকলেও স্বাস্থ্যবিধি না মেনেই তা চলছে বিকেল অবধি।
সকালবেলায় ভিড় দেখা গেলেও দুপুর বেলা পরিবেশ থাকে শান্ত।

কিন্তু দুপুর গড়াতেই আছরের নামাজের ঠিক পরে ভিড় জমতে দেখা যায় মোড়ে মোড়ে। হোটেল বা রেস্টুরেন্টের ভেতরে বসে ইফতার করার সুযোগ না থাকলেও দোকানের বাইরে যে ভিড় তাতে স্বাস্থ্যবিধির তিল ঠাঁই পর্যন্ত নাই।
যেন একজনের উপর আরেকজন উপচে পড়ছে। ইফতার কিনতে ব্যস্ত সকলেই।
রাস্তার মোড়ে মোড়ে পুলিশী পাহাড়া থাকলেও ঐসময় যেন আটকে রাখা দায় হয়ে যায়। সকলেই যেন এক পলক বাইরে বের না হয়ে আর পারছিলো না।তবু যদি মুখে মাস্ক আর সচেতন হয়ে বের হতেন তবে কিছুটা হলেও মানা যেত। সারাদিন ব্যাপী লকডাউনে কাঁথা মুড়িয়ে দিলেও যেন করোনাকে কাঁধে বয়ে আনতেই বিকেলের বহিরাগমন।
ক্রেতা বিক্রেতাদের সঙ্গে কথা বলতে চাইলে ব্যস্ততার মাঝে যথেষ্ট বিরক্ত ছিলেন তারা।
দোকানীকে জিজ্ঞেস করায় উনি বলেন,” আমরা মাস্ক ছাড়া কারো কাছে ইফতার বিক্রি করি না।আর বিক্রি করার সময় সকলেই হ্যান্ড গ্লাভস পরেই জিনিস পত্র প্যাকেট করেন।”
উনি এমন টা বললেও তার কোনো বিশেষ সত্যতা পাওয়া যায় নি। কারণ ক্রেতাদের ৪০ শতাংশই ছিলো মাস্ক বিহীন।আর ২০ শতাংশের মাস্ক ছিলো কিন্তু সঠিক নিয়মে পরতে হয়তো কষ্ট হচ্ছিল তাদের। বাকীরা মোটামুটি রকম মাস্ক পরেই ছিলো।
ইফতারের আয়োজন বানাচ্ছিলেন যিনি,উনার কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন,”করোনা গরম সহ্য করতে পারে না।আর আমি আগুণের কাছে থাকি তাই করোনার ভয় নাই।মাস্ক আছে পকেটে কিন্তু গরমে মাস্ক পড়া যায় না।”
যদিও উনার হাস্যকর কথার কোনো ভিত্তি জানা ছিলো না, তবু উনার বানানো ইফতারই সকলকে নিয়ে বাসায় ফিরছিলো ব্যাগ ভর্তি করে।মাস্ক পরিধান করা এক ক্রেতাকে জিজ্ঞেস করলে উনি বলেন,” আমরা তো যতটা পারি সচেতন ভাবেই কেনাকাটা করি। আর ইফতার এর বেলায় দেখা যায় ভীরের মাঝেই নিতে হয়।যদিও পরিবেশটা স্বাস্থ্য সম্মত না কিন্তু না নিয়েও তো উপায় নাই।”মাস্ক বিহীন একজনকে মাস্ক পরিধানের কথা বললে উনি বলেন,” রোজা রাখছি তো করোনা হবে না। আর মাস্ক বাসায় আছে আনার কথা মনে নাই।এমনিতে পরি না তো তাই আর মনে থাকে না।”
এভাবেই যেন সকলে পার করছে এই লক ডাউন এর সময়টা।সতর্কতা বিহীন অসাবধান এ জীবন ব্যবস্থা আরো বড় ক্ষতির কারণ না হয়ে দাড়ায়।সকলকে সচেতন থাকার জন্য সরকারি নির্দেশনা অবলম্বন এবং ইফতার এর পূর্বের এ অবস্থায় একটু বিশেষ সাবধানতা অবলম্বনের আহ্বান জানানো হলো।
অমৃত রায়,জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়