অসুস্থ মায়ের পাশে থাকতেই ঢাকা কলেজ ছেড়েছে আবরারের ছোট ভাই

Abrar Fahad, younger brother of Abrar Fayaz

বড় ভাইয়ের অকাল মৃত্যুর শোকে অসুস্থ হওয়া মায়ের পাশে থাকার জন্য ঢাকা কলেজ থেকে ছাড়পত্র নিয়েছেন বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) নিহত শিক্ষার্থী আবরার ফাহাদের ছোট ভাই আবরার ফাইয়াজ।

মঙ্গলবার (১৫ অক্টোবর) ঢাকা কলেজ থেকে ছাড়পত্র নেয়ার আগে করা আবেদনপত্রে কারণ হিসেবে এটি উল্লেখ করেন তিনি।

ঢাকা কলেজের অধ্যক্ষ বরাবর লেখা ছাড়পত্রের আবেদনে তিনি লেখেন, ‘যথাবিহীত সম্মান প্রদর্শনপূর্বক জানাচ্ছি যে, আমার ভাইয়ের অকাল মৃত্যুর শোকে অসুস্থ হয়ে যাওয়ায় আম্মুর পাশে থাকার জন্য আমার কলেজ থেকে ছাড়পত্রের প্রয়োজন।

অতএব জনাবের নিকট বিনীত অনুরোধ আমাকে ছাড়পত্র প্রদান করে বাধিত করবেন।’

এ বিষয়ে জানতে চাইলে ঢাকা কলেজের উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষার্থীদের জন্য গঠিত নিবিড় পর্যবেক্ষণ কমিটির (নিপক) প্রধান সমন্বয়কারী ইংরেজি বিভাগের চেয়ারম্যান প্রফেসর পুরঞ্জয় বিশ্বাস  বলেন, ‘আমরা সব ধরনের সহায়তার আশ্বাসের পরও শুধু পারিবারিক সিদ্ধান্তের কারণে সে ছাড়পত্র নিয়েছে।’

ঢাকা কলেজের অধ্যক্ষ প্রফেসর নেহাল আহমেদ বলেন, ‘ঢাকা কলেজ প্রশাসন আবরার ফাইয়াজের ব্যাপারে অত্যন্ত সহানুভূতিশীল। আমরা তার নিরাপত্তা দিতে প্রস্তুত ছিলাম। সে বাইরে থেকে ক্যাম্পাসে ক্লাসে আসতো।

আরও পড়ুনঃ বাঁচার জন্য পা জড়িয়ে ধরে আবরারঃ প্লাস্টিকের মোটা দড়ি দিয়ে পেটায় মুজাহিদ

আমি তাকে হলে সিটের ব্যবস্থা করে দিতে চেয়েছিলাম। সেখান থেকে সে নির্বিঘ্নে ও নিরাপদে পড়ালেখা চালাতে পারতো। একপর্যায়ে সে ঢাকা কলেজেই পড়বে বলে কিছুটা মন স্থির করলেও পরে তার মায়ের সঙ্গে ফোনে কথা বলে ছাড়পত্র নেয়ার ব্যাপারে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেয়।’

যেকোনো ছাত্রের জন্য ঢাকা কলেজের পরিবেশ সম্পূর্ণ নিরাপদ উল্লেখ করে অধ্যক্ষ আরও বলেন, ‘সে কুষ্টিয়ায় পড়ালেখা করলেও যে কোনো ব্যাপারে সহযোগিতার জন্য তাকে আশ্বস্ত করেছি।’

উল্লেখ্য,সম্প্রতি ফেসবুকে একটি স্ট্যাটাস দেয়ার জেরে বুয়েট শিক্ষার্থী আবরার ফাহাদকে গত ৬ অক্টোবর রাতে ডেকে নিয়ে যায় বুয়েট শাখা ছাত্রলীগের কয়েকজন নেতাকর্মী। এরপর রাত ৩টার দিকে শেরেবাংলা হলের নিচতলা ও দোতলার সিঁড়ির করিডোর থেকে তার মরদেহ উদ্ধার করা হয়।

এ ঘটনার পর মঙ্গলবার (১৫ অক্টোবর) দুপুর ১টার দিকে স্বজনদের সঙ্গে নিয়ে ঢাকা কলেজে আসেন আবরার ফাইয়াজ। সে সময় তিনি সাংবাদিকদের বলেন, ‘বড় ভাইয়ের এমন মৃত্যুতে পুরো পরিবার মুষড়ে পড়েছে।

বাবা-মা চান না আমি তাদের ছেড়ে থাকি। তাই ঢাকা কলেজ ছাড়লাম। আবরার ফাইয়াজ ঢাকা কলেজের একাদশ শ্রেণিতে পড়তেন।

0 Shares
  • 0 Facebook
  • Twitter
  • LinkedIn
  • Mix
  • Email
  • Print
  • Copy Link
  • More Networks
Copy link
Powered by Social Snap